Suzuki Gixxer 155 Dual Disc ৯,০০০ কিলোমিটার রাইড - তারেক মাহমুদ

This page was last updated on 19-Nov-2023 12:14pm , By Raihan Opu Bangla

আমি ডা তারেক মাহমুদ। আমি মিরপুরে থাকি। আমার লাইফের প্রথম বাইকটি Suzuki Gixxer 15. 5 Dual Disc যা এখনও আমার বর্তমান বাইক। আজ আমি আপনাদের সাথে এই বাইকটির ব্যাপারে কিছু অভিজ্ঞতা শেয়ার করবো ।

 suzuki gixxer 155 dual disc user review 

Suzuki Gixxer 155 Dual Disc ৯,০০০ কিলোমিটার রাইড - তারেক মাহমুদ

সত্যি কথা বলতে আমি বাইক চালানোর ভক্ত নই। আমি গাড়ি চালাতাম এবং ভেবেছিলাম বাইক গুলো নিরাপদ নয়। তবে আমাকে প্রতিদিন ঢাকার ট্র্যাফিক দিয়ে চলাচল করতে হয়েছিল এবং এটি আমার পক্ষে খুব কঠিন ছিল। যাতায়াত এর সময় রাস্তায় প্রতিদিন আমাকে ৩ - ৪ ঘন্টা অতিরিক্ত সময় ব্যয় করতে হত। এটি সত্যিই খুব বিরক্তিকর ছিল। সুতরাং এই বছরে আমি পাঠাও এবং উবার রাইড নেওয়া শুরু করেছি। এটি আমার জন্য অনেক সময় সাশ্রয় করেছিল এবং রাইড গুলো সত্যিই মজাদার ছিল। তাই আমি স্থির করেছিলাম যে আমার স্নাতক শেষ হওয়ার পরে আমি একটি বাইক কিনব এবং এটি সম্পর্কে পরিবারের সাথে কথা বলতে শুরু করলাম। আমার বাইকটি কিনতে হবে তার সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আমি বাইক সম্পর্কিত রিভিউ গুলো দেখেছি এবং বাইক-সম্পর্কিত পেইজ গ্রুপ গুলো ৬ মাস ধরে অনুসরণ করেছি। আমি বাইকবিডি এবং অন্যান্য চ্যানেল গুলোর অনেক গুলোর রিভিউ দেখেছি ।

 gixxer 155 dd user

আমার প্রথম চাহিদা ছিল সর্বদা সুরক্ষা। তাই ব্রেকিং, ব্যালেন্সিং, গতি এর চেয়ে টায়ারের আকারটি আমার কাছে আরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তবে আমার বাজেটও খুব একটা বেশি ছিল না। তাই সবকিছু বিবেচনা করে আমি বাজাজ পালসার ১৫০ ডুয়াল ডিস্ক বাইকটি কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। তবে বাইকটি কেনার কয়েক সপ্তাহ আগে টিম বাইকবিডি Suzuki Gixxer 155 বাইকের রিভিউ প্রকাশ করেছিল এবং এটি আমাকে বাইকটির প্রতি কৌতূহলী করে তুলেছিল। তবে এটি আমার বাজেটের বাইরে ছিল। তবে ভাগ্যক্রমে এটি কেনার এক সপ্তাহ আগে আমার মা বাজেট বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।

আমি কোনও সন্দেহ ছাড়াই জিক্সার বাইকটি কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম । আমার যা যা চাহিদা ছিল তার সব কিছুই সুজুকি জিক্সার এর মধ্যে ছিল। এটি দেখতে বেশ ভালো, ডিজিটাল স্পিডোমিটার সহ গিয়ার শিফট এন্ডিকেটর দেখতে বেশ ভাল লাগে । ডাবল ডিস্ক, প্রশস্ত টায়ার, ভাল কন্ট্রোলিং সব কিছুই ছিল। তবে এর থেকে বড় ব্যাপার হল তখন এটি আমার বাজেটে ছিল। আমি সেপ্টেম্বর ২০১৯ এ ম্যাবস ইউনিয়ন থেকে Suzuki Gixxer 155 Dual Disc বাইকটি কিনেছি। তখন বাইকটির দাম ছিল ২০,৯০০০/- টাকা। বাইকটি কিনতে আমি আমার বাবা, মা, ছোট ভাই এবং আমার খুব ভাল বন্ধুর সাথে গেলাম । তার কাছে দুটি বাইক রয়েছে (Yamaha FZ V1 এবং Honda CBR)।

 suzuki gixxer headlight

গাড়ি চালানোর পর থেকে আমার লাইসেন্স ছিল তবে আমি কীভাবে বাইক চালাতে হয় তা জানতাম না। তাই আমার বন্ধু বাইকটি আমার বাসায় নিয়ে আসতে আমার সাথে যান। কালো কালারটি আমার প্রিয় ছিল,ত বে আমার পরিবার এবং বন্ধু মেরুন/সিলভার কালারটি নেওয়ার জন্য আমাকে বলে । পরবর্তিতে আমি সিধান্ত পরিবর্তন করি । আমরা ফুয়েল নিয়ে বাড়িতে চলে আসি। আমি বাইক চালাতে জানি না বলে সেদিন আমি বাইকটি চালাতে পারিনি। পরের দিন আমি আমার গ্যারেজের ভিতরে এটি চালানো শুরু করলাম। আমি কীভাবে বাইক চালাতে পারি সে সম্পর্কে ইউটিউব ভিডিও দেখেছি এবং আমি চালানো শুরু করেছি।

চালাতে বেশ ভাল লাগছিল তবে কম্ফোর্ট নিয়ে ভালো করে চালাতে পারতেছিলাম না। কারণ আমি একটি সীমাবদ্ধ জায়গায় ছিলাম। পরের দিন যখন আমি কিছুটা গিয়ার এবং ক্লাচ ধরেছিলাম তখন আমি এটিকে বাইরে নিয়ে গেলাম। এটা অন্যরকম অনুভূতি ছিল । রাস্তার নিয়মকানুন গুলো আমি ইতিমধ্যে জানতাম বলে শিখতে আমার বেশি দিন লাগেনি। সুতরাং খুব তাড়াতাড়ি আমি বুঝতে পারি যে কখন গিয়ার গুলো পরিবর্তন করতে হবে। আমি নিয়ম মেনে একটি ব্রেক-ইন পিরিয়ড শেষ করেছি। তখন আমি ৬০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা এবং ৫ হাজার আরপিএম এর উপরে উঠাইনি। ম্যানুয়াল অনুযায়ী ১৬০০ কিলোমিটার পর্যন্ত ব্রেকিং শেষ করেছি। আস্তে আস্তে বাইকটি স্মুথ হতে শুরু করে । আমি আমার বাইকের ব্রেকিং দ্রুত শেষ করার জন্য প্রায়ই পূর্বাচল এ যেতাম ।

 gixxer 155 user

আসুন Suzuki Gixxer 155 Dual Disc বাইকটির কিছু বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক -

  • এই বাইকটিতে দুর্দান্ত ব্যালেন্সিং রয়েছে
  • এটি্র টার্নিং রেডিয়াস বেশ ভালো
  • বাইকটি নিয়ে ট্র্যাফিকের মধ্য দিয়ে যাওয়া খুব সহজ
  • সিটিং পজিশন আরামদায়ক এবং উঁচু। তবে হর্নেট বা এফজেডের মতো নয় তবে যথেষ্ট আরামদায়ক।
  • পিলিয়ন সিট আরামদায়ক নয়, বিশেষত মহিলা পিলিয়ন এর জন্য
  • রেডি পিকআপ যথেষ্ট ভালো
  • ভাল ব্রেকিং সিস্টেম
  • প্রশস্ত এমআরএফ টায়ার
  • প্লাস্টিকের উপাদান এবং পেইন্টের মান ভাল
  • হেডলাইট মোটেও হাইওয়ের জন্য যথেষ্ট নয়

বাইকের রক্ষণাবেক্ষণ নিয়ে কিছু কথা - আমি প্রথম দিন থেকে এটির ভাল যত্ন নিয়েছি। প্রথম ৩০০ কিলোমিটারে ইঞ্জিন অয়েল পরিবর্তন করেছি তখন আমি মিনারেল ব্যবহার করেছি প্রতি ৫০০ - ৭০০ কিলোমিটারে আমি ইঞ্জিন অয়েল পরিবর্তন করেছি । আমি ৪০০০ কিলোমিটার পরে সিন্থেটিক ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহার করা শুরু করি এবং প্রতি ১৫০০ কিলোমিটারে এটি পরিবর্তন করি। আমি মিনারেল এবং সিন্থেটিক উভয়ই শুরু থেকে শেল ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহার করে আসছি। আমি যখনই ইঞ্জিন অয়েল পরিবর্তন করি তখনই আমি অয়েল ফিল্টার পরিবর্তন করি।

আমি আমার প্রথম সার্ভিসটি ৩০০ কিলোমিটার এবং এরপর যথাক্রমে ১০০০ কিলোমিটার ও তারপরে প্রতি ২০০০ কিলোমিটার করেছি। সুতরাং এটি প্রায় ৬ বার সার্ভিস করা হয়েছে। ম্যাবস ইউনিয়ন থেকে প্রথম ৫ বার এবং অন্যটি মিরপুরের একটি স্থানীয় দোকান থেকে শেষবার। আমি স্থানীয় দোকান থেকে সার্ভিস দেখে মুগ্ধ হয়েছি এবং ভবিষ্যতে আমি এখান থেকে আমার সার্ভিসিং গুলো করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

 gixxer engine

আমি প্রথম দিন থেকেই ট্রাষ্ট ফুয়েল স্টেশন থেকে ফুয়েল ব্যবহার করেছি। ২৫০০ কিলোমিটারের আগে মাইলেজ ছিল প্রায় ৩৭ - ৪২ কিলোমিটার প্রতি লিটার। আজকাল এটি প্রায় ৪৭- ৫০ কিলোমিটার প্রতি লিটার পাচ্ছি ঢাকা শহরে। কেউ কেউ এটি বিশ্বাস নাও করতে পারেন তবে এটি সঠিক। এটি আমার রক্ষণাবেক্ষণ এবং রাস্তায় স্মার্ট রাইডিংয়ের কারণে হয়তো হচ্ছে । আমি বাইকটির কিছুই পরিবর্তন করিনি। আমি স্টক লুকস বেশি পছন্দ করি।

তবে আমি স্টক হেডলাইটটি পরিবর্তন করেছি কারণ এটি পর্যাপ্ত নয় এবং 7এস এলইডি ইনস্টল করেছি এবং স্টক হর্নও পরিবর্তন করেছি। আমার একটা ছোট দুর্ঘটনা ঘটেছে। আমি পিচ্ছিল রাস্তায় পড়ে গিয়েছিলাম। তখন আমাকে হ্যান্ডেলবার এবং একটি লুকিং গ্লাস পরিবর্তন করতে হয়। আমি সামনের ব্রেক প্যাড একবার পরিবর্তন করেছি। ক্লাচ ক্যাবেল একবার এবং এয়ার ফিল্টার একবার পরিবর্তন করেছি। আমি টপ স্পিড চেক করিনা। আমি নিরাপদ রাইডিংয়ে বিশ্বাস করি। তবে আমি এই বাইকটি দিয়ে ১১৮ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা পর্যন্ত স্পিড তুলেছি। এখন আসুন এই বাইকটি সম্পর্কে ৫টি ভাল এবং খারাপ দিক আলোচনা করি। বাইকটির ভালো দিক -

  • বিল্ড কোয়ালিটি
  • ব্যালেন্সিং
  • ব্রেকিং
  • মাইলেজ
  • কম্ফোর্ট

suzuki bike user in bd

বাইকটির খারাপ দিক -

  • পিলিয়ন সিট আরামদায়ক নয়
  • সাসপেনশন ভালো লাগেনি
  • এই বিভাগের অন্যান্য বাইকের তুলনায় এটি খুব বেশি বড় লাগেনা
  • লং রাইডে ইঞ্জিনের পারফরম্যান্স কিছুটা কমতে থাকে এবং শব্দে কিছুটা পরিবর্তন হয়
  • হেডলাইট এর আলো যথেষ্ট নয়

সামগ্রিকভাবে এটি এমন একটি বাইক যা, আপনাকে বাজেটের মধ্যে বেশ ভালো সুরক্ষা দিবে। আমি এই Suzuki Gixxer 155 Dual Disc নিয়ে খুব খুশি এবং আমি নিশ্চিত যে যারা এটি সঠিকভাবে যত্ন নিয়ে ব্যবহার করছেন তারাও এটির সাথে খুব খুশি। আপনি যদি এই বাইকটি কেনার পরিকল্পনা করে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনি হতাশ হবেন না। ধন্যবাদ।

সুজুকির সব বাইকের দাম এবং সুজুকির শো-রুম সর্ম্পকে বিস্তারিত জানতে আমাদের ওয়েবসাইট ঘুরে আসুন। নতুন নতুন মোটরসাইকেল এর বিষয়ে খবর জানতে আমাদের সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ সবাইকে।

লিখেছেন - ডাঃ তারেক মাহমুদ

আপনিও আমাদেরকে আপনার বাইকের মালিকানা রিভিউ পাঠাতে পারেন। আমাদের ব্লগের মাধ্যেম আপনার বাইকের সাথে আপনার অভিজ্ঞতা সকলের সাথে শেয়ার করুন! আপনি বাংলা বা ইংরেজি, যেকোন ভাষাতেই আপনার বাইকের মালিকানা রিভিউ লিখতে পারবেন। মালিকানা রিভিউ কিভাবে লিখবেন তা জানার জন্য এখানে ক্লিক করুন এবং তারপরে আপনার বাইকের মালিকানা রিভিউ পাঠিয়ে দিন articles.bikebd@gmail.com – এই ইমেইল এড্রেসে।

Best Bikes

Honda CB Hornet 160R

Honda CB Hornet 160R

Price: 169800.00

Honda CB Hornet 160R ABS

Honda CB Hornet 160R ABS

Price: 255000.00

Honda CB Hornet 160R CBS

Honda CB Hornet 160R CBS

Price: 212000.00

View all Best Bikes

Latest Bikes

CFMoto 300SS

CFMoto 300SS

Price: 510000.00

Honda Shine 100

Honda Shine 100

Price: 107000.00

QJ SRK 250 RR

QJ SRK 250 RR

Price: 0.00

View all Sports Bikes

Upcoming Bikes

CFMoto 300SS

CFMoto 300SS

Price: 510000.00

Qj motor srk 250

Qj motor srk 250

Price: 0.00

GPX Demon GR200R

GPX Demon GR200R

Price: 0.00

View all Upcoming Bikes