কমতে যাচ্ছে মোটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন ফি । জানুন বিস্তারিত

Published On 20-Oct-2020 01:04pm , By Raihan Opu Bangla

বাইক প্রেমীদের জন্য সুখবর , কমতে যাচ্ছে মোটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন ফি। এর ফলে একজন বাইকারের তার বাইকটি রেজিস্ট্রেশন করা আরো কিছুটা সহজ হয়ে উঠবে।  ভবিষ্যতে ১০০ সিসি অথবা তার চেয়ে কম সিসির বাইক রেজিস্ট্রেশন ফি হবে ২ হাজার টাকা এবং ১০০ সিসির বেশি যেসব বাইক রয়েছে সেগুলোর রেজিস্ট্রেশন ফি হবে ৩,০০০ টাকা। তবে অন্য ফি গুলোতে পরিবর্তন আসেনি।

  রেজিস্ট্রেশন ফি

কমতে যাচ্ছে মোটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন ফিঃ

এর ফলে ব্যবহারকারীদের ১০০ সিসি পর্যন্ত বাইকের জন্য দিতে হবে ৮,৫৭৯টাকা এবং ১০০ সিসির বেশি বাইকের জন্য দিতে হবে ১১,৫৯০ টাকা। এই ব্যয়ের মধ্যে পরিদর্শন চার্জ, রোড ট্যাক্স এবং পুনঃনির্বাচিত নম্বর প্লেট চার্জ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।  শিল্পের অভ্যন্তরীণ ব্যক্তিরা সরকারের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) সম্মতি পাওয়ার পরে হ্রাস রেজিস্ট্রেশন ব্যয়ের বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করবে। 


আগস্টে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের প্রধান সচিব Ahmed Kaikaus এবং বাংলাদেশের জাপানি বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বৈঠকের ফলে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এই সিদ্ধান্তটি বাস্তবায়নের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অর্থ মন্ত্রণালয় এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রককে দায়িত্ব দেয়। 


ব্যবসায় অভ্যন্তরীণরা জানিয়েছেন, বর্তমানে বাজারে ১০০ সিসি বা কম ইঞ্জিন ক্ষমতা সম্পন্ন মোটরসাইকেলের চাহিদা কম। তবে ১১০ সিসির উৎপাদন ও আমদানি বাড়ছে। সুতরাং, ন্যূনতম নিবন্ধকরণ ফি ২,০০০ টাকা নির্ধারণের সিসির সীমাটি 110 CC তে উঠানো উচিত ছিল।

  মোটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন ফি

আরও পড়ুন >> BRTA Online Registration – অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন চেক করার নিয়মাবলী


Bangladesh Motorcycle Assemblers and Manufacturers Association (BMAMA) চলতি অর্থ বছরের বাজেটের আগে মোটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন ফি ৮১% কমিয়ে ৪,০০০ টাকা করার প্রস্তাব করেছিল। 


বাংলাদেশ হোন্ডা প্রাইভেট লিমিটেডের হেড অফ ফাইন্যান্স এন্ড কর্মাশিয়াল আশিকুর রহমান বলেছেন, সরকারের সিদ্ধান্ত প্রশংসনীয়। যাই হোক, মোটরসাইকেলের সিসির পরিমাণ এখন বেড়েছে বিবেচনা করে, সিসির সীমাটি 110 তে নির্ধারণ করা বা সমস্ত ধরণের মোটরবাইকগুলির জন্য অভিন্ন ফি নির্ধারণ করা ভাল। তিনি আরও বলেন, BRTAমোটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশনের সময় রোড ট্যাক্স আদায় করে। 


সড়ক শুল্ক সহ এই সময়ে মোট ব্যয় ২২,৭৪৭ টাকা।  সড়ক শুল্ক সহ নিবন্ধকরণের মোট ব্যয় যদি প্রায় ১০,০০০ টাকায় নামানো যায় তবে এটি শিল্পের উন্নয়নে বড় ভূমিকা নেবে। জাপানি বিনিয়োগকারীদের মতে, ট্র্যাফিক জ্যাম ও সড়ক দুর্ঘটনার ঝুঁকি সহ বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার মধ্যে এখনও বাংলাদেশের মোটরসাইকেলের সেক্টর বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই বৃদ্ধি বজায় রাখতে নিবন্ধন ফি হ্রাস করতে হবে।

  বি আর টি এ BRTA 


বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ১০ টি ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল নির্মিত বা একত্রিত হয়, যথা: রানার, হিরো, বাজাজ, হোন্ডা, টিভিএস, ইয়ামাহা, সুজুকি, বেনেলি, জোংশেং এবং লিফান।


আরও পড়ুন >> অনলাইনে ট্যাক্স টোকেন রিনিউ করার পদ্ধতি। বি আর টি এ । জানুন বিস্তারিত


BMAMA এর তথ্য অনুসারে এ খাতে এখন পর্যন্ত প্রায় আট হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে, যা প্রায় দুই লাখ লোককে প্রত্যক্ষ বা অপ্রত্যক্ষভাবে চাকরি দেয়। মোটরসাইকেল শিল্পটি প্রতি বছর ডিউটি, ট্যাক্স এবং ভ্যাট হিসাবে প্রায় ২,০০০ কোটি টাকা অবদান রাখে। অধিকন্তু, নিবন্ধকরণ ফি থেকে প্রায় এক হাজার কোটি টাকা আয় করার সুযোগ রয়েছে।


কৃতজ্ঞতাঃ THE BUSINESS STANDARD