TVS Apache RTR 4V ৮,০০০ কিলোমিটার রিভিউ – সাকিবুল

আমি সাকিবুল। আমি বরগুনা জেলার বেতাগী উপজেলায় থাকি। আজ আমি আমার TVS Apache RTR 160 4V বাইকটি ৮ হাজার কিলোমিটার রাইড করার কিছু অভিজ্ঞতা শেয়ার করবো।

tvs apache rtr 160

আমার জীবনের প্রথম বাইক অর্থাৎ যে বাইক দিয়ে চালানো শিখেছিলাম সেটা হচ্ছে Bajaj CT 100। বাইকিং বলা যায় আমার রক্তের সাথে মিশে গিয়েছে। বাইকিং করা আমার সপ্ন। বাইক নিয়ে ঘুরেতে যাওয়া আমার শখ। বাইক রাইড করে আমি খুব আনন্দ পাই এবং ভালো লাগে ।

আমার বর্তমান বাইক TVS Apache RTR 160 4V রাইড করছি। বাইকটি আমি কিনেছি ১বছরের মত। বাইক বর্তমানে ৮ হাজার কিলোমিটার রানিং। এর রেডি পিকাপ ও পারফর্মেন্স আমার কাছে খুব দারুন লাগে। এক কথায় অসাধারণ। থ্রটল রেস্পন্সের ফিল নেওয়ার জন্যই আসলে RTR 160 4V নেওয়া।

আরও পড়ুনঃ TVS Apache RTR 160 4V রিভিউ – টিম বাইকবিডি

আমি অনেক দিন যাবত বাইক নিয়ে ইউটিউব এবং গুগল এ আইডিয়া নিতে থাকি এবং ইন্ডিয়ায় RTR 4V বাইকের রিভিউ দেখি। এরপর 4V যখন বাংলাদেশের মার্কেট এ আসে বাইকটির পারফর্মেন্স দেখে ভালো লাগে।

tvs apache rtr 4v

প্রাইস ও ২ লাখের মধ্যে হওয়ায় বাইকটি নিয়ে নেই। বাইকটির লঞ্চ হওয়ার পর ২০৪,০০০/- টাকায় কিনেছি। বরিশাল বগুড়া রোড টিভিএস শোরুম থেকে নিয়েছি।

যখন বাইকটি কিনি ঔদিন কোন প্ল্যান ছিল না বাইক কেনার। আব্বু এসে হঠাৎ বলে চল এক জায়গায় যাব। তারপর আব্বু টিভিএস শোরুম এর সামনে নিয়ে আসে। মনে করলাম এতদিনের স্বপ্ন আজ হয়তো পূরন হবে আর স্বপ্ন বাস্তবেই পরিনত হলো।

সত্যি বলতে 4V কেনার আগে আমি কখনো 100cc বাইক ছাড়া অন্য বাইক রাইড করিনি। তাই এর গিয়ার কন্ট্রোলিং ব্রেকিং সম্পর্কেও আমার ধারনা ছিলনা।

বাইক নিয়ে বাসায় যাচ্ছিলাম প্রথম নিজের বাইক চালালাম দেখলাম খুব সহজ আর অনুভুতিটা ছিল আকাশ ছোয়া। বাইক যখন অন করি ডিসপ্লের লুকটা খুব ভালো লাগে। ডুয়েল ব্যারেল এর এক্সস্ট অস্থির একটা সাউন্ড দেয়।

rtr 160 4v speedometer

এখন পর্যন্ত বাইকটি ৩ বার ফ্রি সার্ভিস করিয়েছি এবং যে শোরুম থেকে কিনেছি ওখান থেকেই সার্ভিস করিয়েছি। নিয়মিত মেইন্টেনেন্স করার চেষ্টা করি। নিয়ম মেনে বাইক রাইড করি। বড় ধরনের কোন সমস্যায় এখন পর্যন্ত পরতে হয়নি ।

১৬০ সিসি এর একটি পাওয়ারফুল ইঞ্জিন দেয়া হয়েছে বাইকটিতে। এছাড়া ৫ টি গিয়ার, ডুয়েল ব্যারেল এক্স হস্ট, টিউবলেস টায়ার, ডুয়েল ডিক্স, নাইস লুকস সবকিছু মিলিয়ে আমার কাছে সাধ্যের মধ্যে সেরা একটি বাইক বলতে পারি।

TVS Apache RTR 160 4V Review By Team BikeBD

২৫০০ কিলোমিটার ব্রেকিং শেষ করার পরে ৩৮-৪০ কিলোমিটার প্রতি লিটার এর মতো মাইলেজ পেয়েছি। আমার সিটি রাইড খুব কম করা হয়। উপজেলা এড়িয়াতে থাকি।

আমি আমার বাইকে মতুল মিনারেল ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহার করি। গ্রেড হচ্ছে 10w-30 এবং দাম ৪৮০ টাকা। আলহামদুলিল্লাহ্‌ এখন পর্যন্ত আমার বাইকের কোন পার্টস বদলাতে হয়নি।

বড় কোন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়নি। এখন পর্যন্ত আমার বাইকের কোন অংশ মোডিফাই করিনি। এখন পর্যন্ত আমার তোলা সর্বোচ্চ স্পীড ১১৭ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা।

tvs apache rtr 160 4v user review

এখন পর্যন্ত অভিজ্ঞতায় বাইকটির কিছু ভালো দিকঃ

  • কুইক এক্সেলারেশন
  • স্মুথনেস
  • ব্রেকিং TVS Apache RTR 150 এর থেকে অনেক বেটার
  • ওয়েল কুল
  • কম্ফোর্ট সিটিং পজিশন

বাইকটির কিছু খারাপ দিকঃ

  • টায়ারের গ্রিপ খুব বেশি ভালো লাগেনি
  • হেডলাইটের আলো হাইওয়েতে খুবি কম মনে হয়
  • গিয়ার এন্টিগেটর দেওয়া উচিৎ ছিল

এভাবেই চলছে TVS Apache RTR 160 4V নিয়ে আমার পথচলা। আমি আমার বাইকটি নিয়ে অনেক সন্তুষ্ট। বলতে গেলে এই বাজেটে টিভিএস এমন কিছু দিয়েছে যা আপনি চান। আপনার বাজেট যদি হয় ২ লক্ষ টাকা আর প্রয়োজন যদি হয় প্রচুর থ্রটল রেসপন্স তাহলে নিশ্চিন্তে এই বাইকটি নিয়ে নিতে পারেন। আমার লেখাটি এতক্ষণ ধরে পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

 

লিখেছেনঃ সাকিবুল

 

আপনিও আমাদেরকে আপনার বাইকের মালিকানা রিভিউ পাঠাতে পারেন। আমাদের ব্লগের মাধ্যেম আপনার বাইকের সাথে আপনার অভিজ্ঞতা সকলের সাথে শেয়ার করুন! আপনি বাংলা বা ইংরেজি, যেকোন ভাষাতেই আপনার বাইকের মালিকানা রিভিউ লিখতে পারবেন। মালিকানা রিভিউ কিভাবে লিখবেন তা জানার জন্য এখানে ক্লিক করুন এবং তারপরে আপনার বাইকের মালিকানা রিভিউ পাঠিয়ে দিন articles.bikebd@gmail.com – এই ইমেইল এড্রেসে।

About Arif Raihan opu

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*