Motorcycle Insurance – বাইকের ইন্স্যুরেন্স থেকে কি ক্ষতিপূরন পাওয়া যায়?

চলাচলের জন্য মোটরসাইকেল অন্যতম এক বাহন। আর এই মোটরসাইকেল রাস্তায় চালাতে গেলে আমাদের বেশ কিছু কাগজপত্র লাগে। এর মধ্যে ইন্সুরেন্স একটি অন্যতম জিনিস। আমরা অনেকেই Motorcycle Insurance সম্পর্কে জানি, আবার অনেকেই জানি না। অনেকেই চলাফেরার করার জন্য মোটরসাইকেল ব্যবহার করেন। যানবাহনের কথা উঠলে সবার আগে আসে দুর্ঘটনার কথা। রাস্তায় বের হলে নানা ধরণের দুর্ঘটনা চোখে পড়ে আমাদের সবার। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দোষী ব্যক্তিকে তাৎক্ষনিক জরিমানা প্রদান করতে হয় অথবা অপরাধী ব্যক্তিকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়। দুর্ঘটনার কারণে যদি আপনার প্রিয় মোটরসাইকেলের ক্ষতি হয় তাহলে হতাশার কোন শেষ থাকেনা। "ইন্সুরেন্স এই ক্ষেত্রে অনেক বড় ভূমিকা রাখে। দুর্ঘটনা জনিত কারণে আপনার…

Review Overview

User Rating: 4.83 ( 2 votes)

চলাচলের জন্য মোটরসাইকেল অন্যতম এক বাহন। আর এই মোটরসাইকেল রাস্তায় চালাতে গেলে আমাদের বেশ কিছু কাগজপত্র লাগে। এর মধ্যে ইন্সুরেন্স একটি অন্যতম জিনিস। আমরা অনেকেই Motorcycle Insurance সম্পর্কে জানি, আবার অনেকেই জানি না।

motorcycle insurance online bangladesh

অনেকেই চলাফেরার করার জন্য মোটরসাইকেল ব্যবহার করেন। যানবাহনের কথা উঠলে সবার আগে আসে দুর্ঘটনার কথা। রাস্তায় বের হলে নানা ধরণের দুর্ঘটনা চোখে পড়ে আমাদের সবার। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দোষী ব্যক্তিকে তাৎক্ষনিক জরিমানা প্রদান করতে হয় অথবা অপরাধী ব্যক্তিকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়। দুর্ঘটনার কারণে যদি আপনার প্রিয় মোটরসাইকেলের ক্ষতি হয় তাহলে হতাশার কোন শেষ থাকেনা।

“ইন্সুরেন্স এই ক্ষেত্রে অনেক বড় ভূমিকা রাখে। দুর্ঘটনা জনিত কারণে আপনার মোটরসাইকেলের কোন ক্ষতি হলে ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি আপনার মোটরসাইকেল ঠিক করার সমস্ত খরচ বহন করবে। কিন্তু কিভাবে এই কাজটি করা যায় এটা আমরা খুব কম মানুষই জানি।”

আপনার বাইকে যদি কম্প্রেহেন্সিভ মটো ইন্সুরেন্স করা থাকে তাহলে আপনার বাইক দূর্ঘটনার ক্ষ্তিগ্রস্থ হলে আপনাকে কোন টাকা ব্যয় করতে হবে না। আপনি ইন্সুরেন্স থেকে টাকা পাবেন।

Motorcycle Insurance – কিভাবে করবো ?

বাইকের ইন্সুরেন্স করার জন্য ইন্সুরেন্স অফিসে যেতে হবে আপনাকে। সেখানে যাওয়ার সময় আপনার সাথে বাইকের কাগজপত্র নিয়ে যেতে হবে। যদি ইন্সুরেন্স অফিস খুজেঁ না পান তাহলে বাইক বিক্রয় প্রতিষ্ঠানে যান তারা আপনাকে সাহায্য করবে। সেখান থেকে বাইকের ইন্সুরেন্স করতে পারবেন ।

তবে এই সকল পদ্ধতি অনেকের কাছেই ঝামেলা মনে হতে পারে। সম্প্রতি এই সমস্যার সমাধান হয়েছে। এখন আপনি ঘরে বসেই ইন্সুরেন্স করতে পারবেন?

bike insurance in bangladesh

অনলাইন ইন্সুরেন্স কিভাবে করে?

প্রথম বারের মত বাংলাদেশে নিটল ইনসুরেন্স দিচ্ছে অনলাইনে মোটরসাইকেল ইনসুরেন্সের সুবিধা। আপনি খুব সহজেই অনলাইনে ইন্সুরেন্স করতে পারেন।

Motorcycle Insurance – অনলাইন ইনসুরেন্স করার পদ্ধতিঃ

  • প্রথমে ব্রাউজারে nitolinsurance.com ওপেন করতে হবে
  • তারপর ক্লিক করতে হবে online motor insurance
  • মোটরসাইকেলের সম্পূর্ন বিবরন দিতে হবে
  • তারপর পেমেন্ট মেথড সিলেক্ট করুন বিকাশ, মোবাইল ব্যাংকিং, ক্রেডিট কার্ড, ডেবিড কার্ড ইত্যাদি
  • তারা আপনাকে একটি কনফারমেশন মেসেজ পাঠাবে এবং আপনার ইমেইলে একটি কপি পাঠিয়ে দেয়া হবে
  • আর তিন কর্ম দিবসের মধ্যে কুরিয়ারের মাধ্যমে আপনার কাছে ইনসুরেন্সের কপি পৌছে যাবে

Motorcycle Insurance – ইন্সুরেন্স থাকার সুবিধা কি?

আমরা অনেকেই এই চিন্তা করি যে মোটরসাইকেলের ইন্সুরেন্স শুধু মামলার হাত থেকে আমাদের বাচায়, এর চাইতে বেশি এটি কোন কাজেই আসে না। কিন্তু আপনার এই ধারনা সম্পূর্ন ভুল। কারন ইন্সুরেন্সের অনেক সুবিধা আছে। চলুন সেগুলো সম্পর্কে জেনে নেয়া যায়।

  • “Workmen’s compensation act 1923 & Fatal accident act 1855” সহ অন্যান্য সাধারণ আইনানুযায়ী বীমাকারীর অধীনস্ত ব্যক্তিকে দুর্ঘটনাজনিত ক্ষতিপূরণ প্রদান করতে হবে। যিনি মোটরসাইকেলের দেখাশোনা বা পরিচর্যার সাথে কোনভাবে যুক্ত আছে।
  • কর্মরত ড্রাইভার ব্যতীত বীমাকারী বা অন্য কোন পরিচিত প্যাসেঞ্জারকে দুর্ঘটনাজনিত ক্ষতিপূরণ প্রদান করতে হবে। যাদের বয়স ১৬ থেকে ৬৫ বছরের মধ্যে এর মধ্যে হতে হবে।
  • বীমাকারী ও কর্মরত ড্রাইভার ব্যতীত দ্বিতীয় কোন অপরিচিত প্যাসেঞ্জারকে দুর্ঘটনাজনিত ক্ষতিপূরণ প্রদান, যাদের বয়স ১৬ থেকে ৬৫ বছরের মধ্যে

motorcycle insurance bd online

ইন্সুরেন্সের আওতাধীন কি কি ?

ইন্সুরেন্স আপনাকে সম্পূর্ন ক্ষতিপূরণ সুবিধা দিয়ে থাকে। এই সুবিধার মধ্যে থাকছে দাঙ্গা , অগ্নিকান্ড, চুরি , বিস্ফোরণ, ধর্মঘট, আতঙ্কবাদী কার্যকলাপ থেকে আপনাকে সুরক্ষা প্রদান করে।

এগুলো ছাড়াও, বিভিন্ন রকম সংকটপূর্ণ পরিস্থিতি ইন্সুরেন্স আপনাকে সাহায্য করে থাকে। যেমন অভ্যন্তরীণ ভাঙ্গন , ব্যাটারি ডিসচার্জ , টায়ার ফাটা , চাবি নিখোঁজ হওয়া ইত্যাদি।

কি কি ক্ষেত্রে ইন্সুরেন্স প্রযোজ্য নয়?

ইন্সুরেন্স কিন্তু সব ক্ষতিতে প্রযোজ্য নয়। আসুন জেনে নেয়া যাক সেই সম্পর্কেঃ

  • হরতাল, ধর্মঘট বা সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ হলে ইন্সুরেন্স প্রযোজ্য নয়।
  • ভূমিকম্পের কারণে ক্ষতিগ্রস্থ হলে ইন্সুরেন্স প্রযোজ্য নয়।
  • বন্যা, টাইফুন, ঘুর্নিঝড়, জ্বলোচ্ছাস, শিলাবৃষ্টি, প্রবলঝড় ও তুষারপাত প্রভৃতি কারণে যানবাহনের ক্ষতি হলে ইন্সুরেন্স প্রযোজ্য নয়।

আমার বাইকে ইন্সুরেন্স করা থাকলে আমি কি ক্ষতিপূরণ বাবদ কোন টাকা পাবো?

প্রতিটি বাইকারের মনে এই প্রশ্নটা ঘুরপাক করে, কিন্তু এই প্রশ্নের উত্তর আমাদের অধিকাংশের জানা নেই। মটোর ইন্সুরেন্সকে প্রধানত দুইভাগে ভাগ করা যায়,

  1. কম্প্রেহেন্সিভ মটো ইন্সুরেন্স
  2. থার্ড পার্টি অথবা এক ল্যায়াবিলিটি মটোইন্সুরেন্স

সবার প্রথমে আপনার জানা থাকতে হবে আপনার মোটরযানে কোন ইন্সুরেন্স করা। যদি আপনার বাইকটিতে কম্প্রেহেন্সিভ মটোইন্সুরেন্স করা থাকে তাহলে আমরা বাইকটি ক্ষতিগ্রস্থ হলে কিছু নিয়ম অনুসারে কম্প্রেহেন্সিভ ইন্সুরেন্স আপনাকে ক্ষতিপূরণ দিবে। কিন্তু আমরা অধিকাংশ বাইকরা বাইক ইন্সুরেন্স বলতে বুঝি থার্ড পার্টি ইন্সুরেন্সকে।

কিন্তু থার্ড পার্টি ইন্সুরেন্সের ক্ষেত্রে, আপনার বাইক ক্ষতিগ্রস্থ হলে আপনি সেখানে কোন ক্ষতিপূরণ পাবেন না। তবে কোন কারনে যদি ড্রাইভার মারা যায় তবে নিটল ইন্সুরেন্স কোম্পানি ২০,০০০ হাজার টাকা পর্যন্ত দিয়ে থাকে।

মোটরসাইকেল ইন্সুরেন্স কোম্পানী

কম্প্রেহেন্সিভ মটো ইন্সুরেন্স করতে কত টাকা লাগে?

  • কম্প্রেহেন্সিভ মটো ইন্সুরেন্স করতে খরচ হয় ১০ হাজার টাকা। আর এটা সকল বীমা কোম্পানির ক্ষেত্রেই একই।

থার্ড পার্টি ইন্সুরেন্স করতে কত টাকা লাগে?

  • থার্ড পার্টি ইন্সুরেন্স করতে খরচ হয় ২৩০ টাকা, আর এই ইন্সুরেন্সটি অধিকাংশ বাইকার করে থাকেন।

বীমার টাকা, ক্ষতিপূরণের টাকা এই সকল জিনিস গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ নির্ধারন করে থাকে।

বাইকের ইন্সুরেন্স কি দীর্ঘ সময়ের জন্য করা যায়?

  • গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের নীতি অনুসারে আপনি আপনার বাইকের ইন্সুরেন্স এক বছরের জন্য করতে পারবেন এর চাইতে বেশি সময়ের জন্য না।

আমাদের সবার মনে একটা প্রশ্ন থাকে ইন্সুরেন্সের টাকা কি পাওয়া যায়?

হ্যা ইন্সুরেন্সের টাকা পাওয়া যায়। কিন্তু সেই টাকা পেতে হলে আপনাকে বেশ লম্বা একটা ধাপ অতিক্রম করতে হবে। সবার প্রহমে আপনাকে থানায় গিয়ে জিডি করতে হবে। জিডির কপি নিয়ে যেতে হবে ইন্সুরেন্স অফিসে।

সেখান থেকে ইন্সুরেন্স কর্তৃপক্ষ আসবে ভেরিফিকেশনের জন্য। তারপর সব কিছু যদি ঠিক থাকে তবেই আপনি সেই টাকা পেতে পারেন। Motorcycle Insurance নিয়ে এই ছিলো আজকের মতো। যদি আপনার মনে কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে কমেন্টে জানাতে পারেন। ধন্যবাদ।

 

লিখেছেন – আশিক মাহমুদ

About Arif Raihan opu

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*