• Partners:
  • Gear-X - Official Accessories Partner of BikeBD
  • Mobil - Official Lubricant Partner of BikeBD
  • Finder - Official Bike Security Partner of BikeBD
  • Carnival Assure - Official Insurance Partner of BikeBD

Kawasaki RR ZX150 – নতুন ভার্সনে আসবে কি? গুঞ্জন নাকি সত্যি?

Kawasaki শব্দটা শুনলেই আমাদের সবার চোখের সামনে পাওয়ারফুল সুপার বাইকের ছবি ভেসে উঠে। আর আমাদের দেশে সিসি লিমিট থাকার জন্য আমরা কখনোই সুপার বাইকের দেখা পাই না। আমাদের দেশে Kawasaki Ninja 125 বাইকটি আছে, কিন্তু ১২৫ সিসির বাইক হওয়ার কারনে আমরা অনেকেই এই বাইকটির উপর খুব বেশি আগ্রহী না।

Kawasaki

আবার আমাদের মধ্যে এমন অনেক বাইকার আছেন যাদের ইচ্ছা Kawasaki এর ১৫০ সিসির কোন বাইক আসলে তারা সেটা কিনবে। আপনি জানেন কি কাওয়াসাকির ১৫০ সিসির বাইক ছিলো একটা সময়, আর সেটা হচ্ছে Kawasaki RR ZX150। আজ আমরা আপনাদের সাথে Kawasaki RR ZX150 বাইকটি নিয়ে আলোচনা করবো, আপনি জানলে অবাক হবেন বাইকটি পাওয়ারের দিক থেকে এই সেগমেন্টের অন্য সব বাইকের থেকে এগিয়ে ছিলো। এই বাইকটি কি নতুন ভার্সনে আবার বাজারে আসবে ?

আরও পড়ুন >> Kawasaki এর সকল বাইকের বর্তমান মূল্য

কি কি আছে Kawasaki RR ZX150 বাইকটিতে ?

Kawasaki RR ZX150 বাইকটি যদি কখনো আপনি চালান তাহলে আপনি সুপার বাইকের অনেকটা ফিল পাবেন। কাওয়াসাকি তাদের এই স্পোর্টস বাইকটি প্রথম বাজারে আনে ১৯৯৬ সালে, এবং এই বাইকটিকে এখন পর্যন্ত ১৫০ সিসি সেগমেন্টের সেরা স্পোর্টস বাইক হিসেবে মানা হয়ে থাকে।

সর্বশেষ ২০০২ সালে বাইকটির নতুন ভার্সন বাজারে আনা হয়েছিলো, যা ছিলো দেখতে আগের চাইতে বেশি স্পোর্টি, তবে ইঞ্জিন ছিলো আগের পাওয়ারফুল ইঞ্জিন। এতো পুরাতন একটি বাইক, কিন্তু ইঞ্জিন পাওয়ারের জন্য এটি বর্তমানের অনেক স্পোর্টস বাইকের চেয়েও সেরা।

Kawasaki RR ZX150

বাইকটিতে রয়েছে ১৪৯ সিসির ইঞ্জিন, কিন্তু তাতে কি, ইঞ্জিনটির ম্যাক্সিমাম পাওয়ার 28.16 BHP , আপনি নিশ্চয় বুঝতে পারছেন বাইকটা কতটা পাওয়ারফুল। বর্তমান সময়ে আমাদের দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় স্পোর্টস বাইক Yamaha R15 V3 থেকে এই বাইকটি পাওয়ারের দিকে এগিয়ে। তবে বাইকটি যেহেতু আগেকার মডেলের তাই বাইকটির সামনে ব্যবহার করা হয়েছে ৯০ সেকশন টায়ার এবং পেছনে ব্যবহার করা হয়েছে ১১০ সেকশন টায়ার।

আরও পড়ুন >> Kawasaki Ninja RR ZX150 সম্পর্কে বিস্তারিত

ইন্টারনেটের বিভিন্ন মাধ্যম থেকে জানা যাচ্ছিল বাইকটি আবার নতুন ভার্সনে বাজারে আসতে পারে। এটা কতটা সত্য তা সময়ই বলে দিবে। এই বাইকটি যদি ইঞ্জিন আগের মতো রেখে ব্রেকিং এবং ব্যালেন্সিং আপডেট করে নতুন কোন রূপে বাজারে আসে তাহলে কেমন হয়?

দেখা যাক বাইকটি বাজারে আসে, আর আসলেও কত সিসির হয়ে বাজারে আসে। সব সময় ভালো মানের হেলমেট ব্যবহার করুন এবং নিয়ন্ত্রিত গতিতে বাইক রাইড করুন।

ধন্যবাদ

We will be happy to hear your thoughts

      Leave a reply

      BikeBD
      Logo