কিভাবে পেশাদার এবং অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করবেন ?

Published On 09-Mar-2020 03:43pm , By Ashik Mahmud Bangla

আমরা সবাই এখন আইন নিয়ে অনেক বেশি সচেতন। এখন আমরা কম বেশি সবাই জানি কিভাবে ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে হয়, কিন্তু আমরা অনেকেই হয়তো জানি না কিভাবে পেশাদার এবং অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করা যায় এবং কত টাকা খরচ হয়। চলুন এই সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক।

কিভাবে পেশাদার এবং অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করবেন ?

  ড্রাইভিং লাইসেন্স

ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন প্রক্রিয়া:

আপনি পেশাদার অথবা অপেশাদার যেই লাইসেন্সটি নবায়ন করেন না কেনো তার জন্য আপনার কিছু কাগজপত্র প্রয়োজন হবে।

Also Read: ঘরে বসে লার্নারের জন্য আবেদন করুন -বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:

১। নির্ধারিত ফরমে আবেদন। ২। রেজিষ্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট। ৩। ন্যাশনাল আইডি কার্ড এর সত্যায়িত ফটোকপি।

[su_button url="https://www.bikebd.com/bike-price-in-bd/" target="blank" style="stroked" background="#3ca539" size="8" center="yes" text_shadow="0px 0px 0px #000000"]আরও পড়ুন > বাংলাদেশের সব বাইকের বর্তমান দাম[/su_button]

৪। শিক্ষাগত যোগ্যাতার সনদ। ৫। নির্ধারিত ফী জমাদানের রশিদ। ৬। পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য পুলিশি তদন্ত প্রতিবেদন। ৭। সদ্য তোলা ১ কপি পাসপোর্ট ও ১কপি স্ট্যাম্প সাইজ ছবি। 

অপেশাদার লাইসেন্স

(ক) অপেশাদারঃ

গ্রাহককে প্রথমে নির্ধারিত ফি জমা দিতে হবে। মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিনের মধ্যে হলে ২৪২৭/- টাকা ও মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিন পরে প্রতি বছর ২০০/- টাকা জরিমানাসহ জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ বিআরটিএ এর নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। আবেদনপত্র ও সংযুক্ত কাগজপত্র সঠিক পাওয়া গেলে একই দিনে গ্রাহকের বায়োমেট্রিক্স (ডিজিটাল ছবি, ডিজিটাল স্বাক্ষর ও আঙ্গুলের ছাপ) গ্রহণ করা হয়। স্মার্ট কার্ড w প্রন্টিং সম্পন্ন হলে গ্রাহককে এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হয়।

(খ) পেশাদারঃ

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সধারীদেরকে পুনরায় একটি ব্যবহারিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর নির্ধারিত ফি জমা দিতে হবে। মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিনের মধ্যে হলে ১৫৬৫/- টাকা ও মেয়াদ উত্তীর্ণের ১৫ দিন পরে প্রতি বছর ২০০/- টাকা জরিমানাসহ  জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ বিআরটিএ এর নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। গ্রাহকের বায়োমেট্রিক্স (ডিজিটাল ছবি, ডিজিটাল স্বাক্ষর ও আঙ্গুলের ছাপ) গ্রহণের জন্য গ্রাহককে নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে উপস্থিত হতে হয়। স্মার্ট কার্ড w প্রন্টিং-এর সমস্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে গ্রাহককে এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হয়। আমরা অনেকেই মনে করি দালাল ছাড়া বিআরটিএ তে কোন কাজ করা সম্ভব না, কিন্তু আপনি যদি একটু সময় নিয়ে যান এবং নিজে কিছুটা চেষ্টা করেন তাহলে আপনি আপনার যে কোন কাজ এখন দালাল ছাড়াই করাতে পারবেন। এতে আপনার সময় কিছুটা বেশি লাগলেও আপনার খরচ অনেকটা কম হবে। 

তথ্য সূত্রঃ বিআরটিএ