Benelli TnT 150 | মালিকানা রিভিউ – তৌহিদ রাসেল

আমার হবে না, বা হয় না জেনেও আমি বার বার শুরু করি । আসলে নতুন করে তখনই শুরু করা যায়, যখন ঢেড় দেরি হয়ে যায় । আমার বেলায় তেমনই হয়েছিল । বলছিলাম আমার বাইকের গল্পের কথা, বছর না ঘুরতেই আমার মাথায় ভুত চাপলো Benelli TnT 150 নিতে হবে । কারন একটাই এর লুক । নেট ঘেটে, পরিচিত ভাইদের বাইক নিয়ে তাদের এক্সপ্রেশন দেখে Benelli TnT 150 প্রেমী হয়েই গেলাম । তবে সমস্যা একটাই এতদিনে অলরেডী থার্ড লট শেষ, বাইক শোরুমে নেই । আমিও খুঁজছিলাম কেউ বিক্রি করে কিনা,কিন্তু রিসেন্ট বাজারে আসার কারনে পাচ্ছিলাম না কাউকেই । অবশেষে পেলাম ফয়সাল নামে…

Review Overview

User Rating: 4.5 ( 1 votes)

আমার হবে না, বা হয় না জেনেও আমি বার বার শুরু করি । আসলে নতুন করে তখনই শুরু করা যায়, যখন ঢেড় দেরি হয়ে যায় । আমার বেলায় তেমনই হয়েছিল । বলছিলাম আমার বাইকের গল্পের কথা, বছর না ঘুরতেই আমার মাথায় ভুত চাপলো Benelli TnT 150 নিতে হবে । কারন একটাই এর লুক । নেট ঘেটে, পরিচিত ভাইদের বাইক নিয়ে তাদের এক্সপ্রেশন দেখে Benelli TnT 150 প্রেমী হয়েই গেলাম ।

Benelli TnT 150 price in bangladesh

তবে সমস্যা একটাই এতদিনে অলরেডী থার্ড লট শেষ, বাইক শোরুমে নেই । আমিও খুঁজছিলাম কেউ বিক্রি করে কিনা,কিন্তু রিসেন্ট বাজারে আসার কারনে পাচ্ছিলাম না কাউকেই । অবশেষে পেলাম ফয়সাল নামে এক ভাইকে সে তার Benelli TnT 150 বিক্রি করবে । কথা ফাইনাল হইলো, একদিন পরে বলে ভাই বিক্রি করব না । কি আর করা আমার শুরু হলো আরো অপেক্ষা নতুন লটের জন্য ।

এক সপ্তাহ পরে ফয়সাল ভাই আবার আমাকে নক করলো ভাই বাইক আমারটাই নেন, এবার আবারও রাজি হয়ে গেলাম, এটা গত ডিসেম্বরের মাঝামাঝি হবে দুদিন পরে বাইক নিতে ঢাকায় আসবো ফয়সাল ভাই আর ফোন রিসিভ করেন না, সে ইতিহাসে আর যেতে চাই না । এই চ্যাপ্টার বন্ধ করে আবার অপেক্ষা শুরু হলো ।

Benelli TnT 150 ownership review

এবার চেনা জানা, রাজ ভাইয়ের বেনেলী ৪৫০০ কিমি চলছে । সব কিছু ঠিকঠাক, বলতে গেলে দামাদামি ছাড়াই নিয়ে নিলাম Benelli TnT 150

এখন ১০০০০+ রানিং, আজ এই বাইক নিয়ে আমার যত কথা, সাথে অভিজ্ঞতারও কমতি নেই । শুরুতে একটা কথা বলে নেই, এটা আমার ৪ নাম্বার বাইক, সবগুলিই চায়না বাইকের অভিজ্ঞতা । এত চায়না বাইক চালিয়ে মাথা ঠিক নেই, ভাবছি সামনের দিন গুলো না জানি চায়না দিয়েই কেটে না যায় ।

Benelli And Keeway Motorcycles At Dhaka Bike Show 2019

Benelli TnT 150 লুক নিয়ে কিছু কথা বলতেই হবেঃ

বাইকটি ক্রয়ের আসল কারন ছিল লুক । আলাদা একটা লুক আপনাকে বাড়তি কনফিডেন্স দিবে এটা অস্বীকার করার কিছুই নেই। অন্য যেকোন বাইক থেকে আলাদা, আর রাস্তা ঘাটে মানুষ তাকিয়ে থাকার ব্যাপারটা তো থাকছেই । হেড লাইট, আর বডি কিট গুলো ন্যাকেড হওয়ার কারনে এর আলাদা একটা লুক নিয়ে এসেছে । এক কথায় একটা কমপ্লিট প্যাকেজ ।

Benelli TnT 150 user review

Benelli TnT 150 ব্যালেন্স আর কন্ট্রোলিংঃ

শেষ বার ঢাকা থেকে বাসায় যেতে আমার সর্বোচ্চ গতি ছিল ১০২, যা খুবই সামান্য হলেও আমার কনফিডেন্স লেবেল ছিল অসাধারণ। আমার কাছে ব্যালেন্স আর কন্ট্রোল ভাল লেগেছে, সিবিএস ব্রেকিং তো ছিলই এটাও আমাকে বাড়তি কনফিডেন্স দিয়েছিল।

CBS এখন বাইকিং জগতে পুরাতন ব্যাপার । এখন আর সেভাবে সামনের ব্রেক ধরার প্রয়োজনই হয় না। পিছনের ব্রেক ধরলেই ৪০:৬০ রেশিয়ো অনুপাতে কাজ করবে। এটা নিয়ে আর নতুন করে বলার কিছু নেই।

Benelli TnT 150 ইঞ্জিনঃ

বাইক নেওয়ার আগেই শুনেছি, আবার আমি নিজে চালিয়েও দেখেছিলাম। সবার মুখে একই কথা ইঞ্জিনের পাওয়ার কম ।
মেইন কথা রেডিপিকাপ টা নেই। সত্যি কথা বলতে আমি বলবো বেশী হেরফের না, ১৯/২০ বলবো আমি । যদিও কোন বাইকের সঙ্গে তুলনা করছি না ।

Benelli TnT 150 engine

এক এক বাইক এক এক রকমের। তবে Benelli TnT 150 এর ইঞ্জিনের সাউন্ডটা আমার কাছে আলাদাই লেগেছে। ইঞ্জিন নিয়ে বাড়তি কোন কথা হবে না, আমার কাছে মনে হয়েছে একটু যত্ন করলে লং টাইম সার্ভিস পাবো ।

রেডী পিকাপ নিয়ে কিছু কথাঃ

রেডি পিকাপ নিয়ে একটু আগে বলেই ফেলেছি, যা নতুন করে বলার কিছুই নেই। তবে আরো ভাল কিছু আশা করা যেত। আমি সর্বোচ্চ গতি তুলেছি ১১৬ কিমি প্রতি ঘণ্টা ।

Benelli TnT 150 মাইলেজঃ

সত্যি কথা বলতে কি এই জায়গাটিতে আমি একটু অবাকই হই যদিও আমি সেভাবে হিসাব করি না কখনো । তবে একবার হিসেব করে ৪৭+ কিমি প্রতি লিটার পেয়েছিলাম। হাই ওয়েতে আরো বেশী হবে হয়ত । আমার কাছে ফুয়েল হিসাব করে বাইক চালানো পছন্দ না।

Benelli TnT 150 speedometer

এবার বলবো এই বাইকের বিশেষ বিশেষ মন্দ দিক :

প্রথমেই বলতে হবে বাইকের তেলের লাইনে একটা বড় সমস্যা আছে, কিছু দিন পরে অটো জ্যাম হয়ে যায় । পথে যেকোন মূহুর্তে আপনি বিপদে পড়তে পারেন।

  • মনো শক খুবই দুর্বল, যার পারফেক্ট সমাধান এখনো পাইনি ।
  • কার্বুরেটরের একটা সমস্যা থেকেই গেছে ।
  • গ্রাব রেইল খুবই বাজে এবং দুর্বল ।
  • পিলিওন সিট আরামদায়ক না।
  • মিটারে ঘড়ি নেই ।

 

বাইকের বেশী আকর্ষনীয় :

  • চেইন স্পোকেট, এক কথায় অসাধারণ । এর থেকে ভাল কিছু হয় না।
  • ন্যাকেড লুকস
  • হেড লাইট
  • সিটিং পজিশন
  • টিউবলেস টায়ার
  • হ্যান্ডেলবার
  • ডিজিটাল মিটার
  • রেয়ার লাইট
  • সিঙ্গেল স্ট্যান্ড

Benelli TnT 150 in bangladesh

শেষ কথা :

আমি বলবো কোন বাইকই একদম পারফেক্ট হবে না, বা সবার মন মত হবে না । তবে এই বাজেটে আরো ভাল কিছু আশা করতেই পারি । সবদিক দিয়ে Benelli TnT 150 স্পোর্টস বাইকটি আলাদা । যদিও ভাললাগাটা যার যার একান্তই ব্যাক্তিগত , কারো সাথে নাও মিলতে পারে । ভাল থাকবেন, আর সাবধানে বাইক চালাবেন সবাই, অবশ্যই হেলমেট পরতে ভুলবেন না। ধন্যবাদ।

 

লিখেছেনঃ তৌহিদ রাসেল

 

 

আপনিও আমাদেরকে আপনার বাইকের মালিকানা রিভিউ পাঠাতে পারেন। আমাদের ব্লগের মাধ্যেম আপনার বাইকের সাথে আপনার অভিজ্ঞতা সকলের সাথে শেয়ার করুন! আপনি বাংলা বা ইংরেজি, যেকোন ভাষাতেই আপনার বাইকের মালিকানা রিভিউ লিখতে পারবেন। মালিকানা রিভিউ কিভাবে লিখবেন তা জানার জন্য এখানে ক্লিক করুন এবং তারপরে আপনার বাইকের মালিকানা রিভিউ পাঠিয়ে দিন [email protected] – এই ইমেইল এড্রেসে।

About Arif Raihan opu

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*