২৫০সিসি মোটরসাইকেল বাংলাদেশে–বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে ভাল হবে নাকি ভাল নয় ??

২৫০সিসি মোটরসাইকেল অনুমতি দেওয়া হবে শোনা যাচ্ছে বাংলাদেশে খুব শীঘ্রই  । আর সেই জন্য বাংলাদেশের বাইকাররা খুব খুশি ১৬৫সিসি এর উপরের সিসির বাইক চালাতে পারবে। কিন্তু ঘটনাটি কি সত্যি কি সত্যি না?? সেই প্রেক্ষিতে আজকে আমরা আপনাদের ২৫০ সিসি মোটরসাইকেল বাংলাদেশে – বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে ভাল কি ভাল নয়?? এই বিষয়ের উপর আলোচনা করব । বাংলাদেশে মোটরসাইকেল ইঞ্জিন ক্যাপসিটি লিমিট মোটরসাইকেল কোম্পানি বাংলাদেশে ২০০২ থেকে ইঞ্জিন ক্যাপাসিটি লিমিট নিয়ে অনেক কথা বার্তা চলছে। তার আগে ইঞ্জিন ক্যাপাসিটির কোন লিমিট ছিল না বাংলাদেশে । ঐ সময় যে কেউ যে কোন লিমিটের সিসি বাইক ব্যবহার করতে পারত। কিন্তু ২০০২ এ সরকার মোটরসাইকেলের ইঞ্জিন…

Review Overview

User Rating: 3.63 ( 12 votes)

২৫০সিসি মোটরসাইকেল অনুমতি দেওয়া হবে শোনা যাচ্ছে বাংলাদেশে খুব শীঘ্রই  । আর সেই জন্য বাংলাদেশের বাইকাররা খুব খুশি ১৬৫সিসি এর উপরের সিসির বাইক চালাতে পারবে। কিন্তু ঘটনাটি কি সত্যি কি সত্যি না?? সেই প্রেক্ষিতে আজকে আমরা আপনাদের ২৫০ সিসি মোটরসাইকেল বাংলাদেশে – বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে ভাল কি ভাল নয়?? এই বিষয়ের উপর আলোচনা করব ।২৫০সিসি মোটরসাইকেল

বাংলাদেশে মোটরসাইকেল ইঞ্জিন ক্যাপসিটি লিমিট

মোটরসাইকেল কোম্পানি বাংলাদেশে ২০০২ থেকে ইঞ্জিন ক্যাপাসিটি লিমিট নিয়ে অনেক কথা বার্তা চলছে। তার আগে ইঞ্জিন ক্যাপাসিটির কোন লিমিট ছিল না বাংলাদেশে । ঐ সময় যে কেউ যে কোন লিমিটের সিসি বাইক ব্যবহার করতে পারত। কিন্তু ২০০২ এ সরকার মোটরসাইকেলের ইঞ্জিন এর উপর নিষেধজ্ঞা জারি করে।

সরকার সাধারন জনগনের জন্য ইঞ্জিন ক্যাপাসিটির সীমাবদ্ধতা করে । শুধু মাত্র ১৫০ সিসি এর মোটরসাইকেল লিগ্যাল করে দেওয়া হয়েছিল সাধারন জনগনের জন্য। পুলিশ এবং অথরাইজড যারা তারাই শুধু হাই সিসি এর বাইক ব্যবহার করতে পারে । কিন্তু আমাদের দেশের সাধারন জনগন এখনো ইঞ্জিন ক্যাপাসিটি লিমিটের মধ্যে আছি।

অনেক অপেক্ষার পর গত বছর সরকার সরকার ১৬৫ সিসি এর জন্য অনুমতি দেয়। সেই অনু্যায়ী আমরা এই বছরে খুব কম সংখ্যক ১৬৫ সিসি এর বাইক পেয়েছি।

honda cb hornet feature specification price 768x346

১৬৫ সিসি মোটরসাইকেল বাংলাদেশে

১৬৫ সিসি বাইক আসার পরও কোয়ালিটির দিক দিয়ে এখনও চেঞ্জ হয়নি। মোটরসাইকেল মার্কেট, কোম্পানি এবং অন্যান্য লোকেরা খুব একটা লাভবান হয়নি। ১৬৫ সিসি ইঞ্জিন ক্যাপাসিটি সত্বেও আমরা মোটরসাইকেলের সেই আনন্দ নিতে পারছি না।

তাই এখনও আমরা একটি ছোট ব্যরিয়ারের মধ্যে থেকে গিয়েছি। আমরা আমাদের কষ্টের জমানো টাকা দিয়ে এখনো লো স্ট্যান্ডার্ড, চিপ কোয়ালিটির বাইক কিনে থাকি অতিরিক্ত ট্যাক্সের এর কারনে।

তাই মোটরসাইকেল কোম্পানি সরকারের সাথে ইঞ্জিন ক্যাপাসিটি ২৫০ সিসি বাড়ানোর জন্য কথাবার্তা চালাচ্ছে । এখন পর্যন্ত কথা চলছে এখনও আমরা কিছু জানতে পারনি কি হবে। গত বছর ১৬৫ সিসি লিমিট বাড়ানো হয়েছিল।

yamaha fazer 250 pulsar rs200 ktm rc200 apache rtr200 768x399

২৫০ সিসি মোটরসাইকেল বাংলাদেশে – সত্যি কি পার্মিশন পাবে কি না?

আবার কিছু দিন ধরে শোনা যাচ্ছে যে বাংলাদেশে ২৫০সিসি মোটরসাইকেল  আসবে । ঢাকা মোটর শো  ২০১৮ এর পর যেন বিষয়টি আরো বেড়ে উঠেছে ।

তাই মানুষদের ধারনা মনে হয় এই বছর সরকার ২৫০ সিসি ক্যাপাসিটির ইঞ্জিন এর নিষেধজ্ঞা তুলে দেবে জনগনদের জন্য । কিন্তু সত্যি এটা যে এখনও এই বিষয়ে আমরা কিচ্ছু জানি না যে আসলে কি পার্মিশন দেবে কি না।

ktm 250 duke 2018 price in bangladesh 768x512

২৫০ সিসি মোটরসাইকেল বাংলাদেশে –  কিছু বিষয় যা এড়িয়ে যাওয়া যাবে না

নিরাশ হয়েন না অবশ্যই কোন না কোন দিন আমরা ২৫০ সিসি মোটরসাইকেল পার্মিশন পেয়ে থাকব। চলেন দেখে আসি যদি সরকার ইঞ্জিন ক্যাপাসিটি ২৫০ সিসি করে তাহলে সরকারের কি লাভ ??

২৫০ সিসি ইঞ্জিন ক্যাপাসিটির পার্মিশন এর ফলে বাইকের দাম যেটা একটি বড় বিষয় । এছাড়াও অত দামের মোটরসাইকেল কেনার জন্য যে পরিমান ট্যাক্স দিতে হবে সেটা ভেবে দেখেন ।

bmw gs 310 kawasaki versys 250 suzuki vstorme 250 spec comparison 768x434

অনেক চয়েস রয়েছে ২৫০সিসি মোটরসাইকেল এর মধ্যে

যদি সরকার ২৫০সিসি মোটরসাইকেল এ্যাপরুভ করে তাহলে নতুন প্রোডাক্টের দুই ধরনের ক্যাটাগরি পাব । সর্বপ্রথম আমরা বর্তমানের মডেলগুলোর মধ্যে কিছু আপগ্রেড পাব। এছাড়াও হায়ার ক্যাপাসিটি বাইকে আমরা নতুন নতুন ফিচারস পাব ।

দ্বিতীয়ত আমরা হাই-টেক, ওয়াল্ড ক্ল্যাস, মর্ডান বাইকগুলো পেয়ে থাকব । সেই সব প্রিমিয়াম মোটরসাইকেলগুলো হয়ত কোম্পানির মাধ্যমে ইর্ম্পোট করা হবে। এই সেগমেন্টে হোন্ডা, ইয়ামাহা, কাওয়াসাকি, সুজুকি কোম্পানি ইর্ম্পোট করে থাকবে ।  তাই আমরা আশা করছি হোন্ডা সিবি আর ২৫০ আরআর, ইয়ামাহা আর২৫, কাওয়াসাকি জেড২৫০ অথবা সুজুকি জিএসএক্স২৫০আর এর মতন প্রোডাক্টস এবং অফ রোডের মধ্যে সিআরএফ২৫০ র‍্যালি এবং কাওয়াসাকি কেএলএক্স২৫০ পেতে পারি ।

kawasaki ninja 205 2018 price in bangladesh 768x480

হায়ার সিসি মোটরসাইকেলের দাম হাতের নাগালে হবে কি না??

আপনারা হয়ত স্বপ্ন দেখে খুব খুশি হচ্ছেন কিন্তু বাস্তবাদী হন এবং মেইন পয়েন্টে আসেন । আপনারা কি ধারনা করতে পেরেছেন ২৫০সিসি মোটরসাইকেল দাম কত হবে বর্তমানের ট্যাক্সের পরিপ্রেক্ষিতে?? একবার ভেবে দেখেন?? আসলে কি আমাদের দেশের মানুষ পারবে ৮,০০,০০০-১২,০০,০০০ লাখ টাকার মধ্যে বাইক কিনতে??

তাই এটি আসলে অনেক একটা বড় বিষয় । শুধু মোটরসাইকেলের ইঞ্জিন ক্যাপাসিটির লিমিট বাড়ালে হবে না । সরকারের উচিত মোটরসাইকেলের উপর ট্যাক্স কমানো ।

honda cbr 250rr 2018 price in bangladesh 768x403

মোটরসাইকেলের উপর ট্যাক্স কমানো উচিত

অতএব মোটরসাইকেল এবং এক্সেসোরিজ এর উপর ট্যাক্স আসলে কমানো উচিত । তাহলেই বাংলাদশের মানুষ লাভবান হবে ইঞ্জিন সিসি লিমিট তুলে দেওয়ার পর । বর্তমানে বাইক মানুষের জন্য খুব প্রয়োজনীয় হয়ে উঠেছে  দৈনিক কাজের জন্য । তাই অবশ্যই সরকারের উচিত ট্যাক্স কমানো ।

250cc motorcycle in bangladesh coming soon 768x480

অতএব পাঠকেরা, এইটাই ছিল ২৫০ সিসি মোটরসাইকেল এর বিষয়ে আলোচনা এবং সত্যিটা । কিন্তু হ্যা আমরা অবশ্যই আশা করছি ২৫০ সিসি এর পারমিশন দেয়া হবে। আমরা আরো আশা করছি যে সরকার মোটরসাইকেলের উপর ট্যাক্স কমাবে যাতে করে সরকার এবং জনগন দুজনেই লাভবান হয়। আশা করি যা হবে ভাল এর জন্য হবে এবং আমাদের অবশ্যই আপনাদের মতামত দেবেন যে কোন বাইক আপনার কাছে পছন্দ যদি সরকার ২৫০ সিসি এর উপর নিষেধজ্ঞা তুলে দেয়। ধন্যবাদ সবাই কে।

About Arif Raihan opu

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*