হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম পালসার এনএস ১৬০ এর ফিচার এর তুলনামূলক রিভিউ

২০১৮ সালে ১৬০সিসি এর মোটরসাইকেল বাংলাদেশের জন্য অন্যতম উপহার । বাংলাদেশে বেশ কিছু ১৬০সিসি এর মোটরসাইকেল লঞ্চ হয়েছে যেগুলো নিয়ে বেশ তর্ক-বির্তক চলছে । বর্তমানে আমাদের দেশে আলোচনার শীর্ষে রয়েছে নতুন লঞ্চ হওয়া হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর এবং বাজাজ পালসার এনএস ১৬০ । তাহলে চলুন দেখে আসি হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম বাজাজ পালসার এনএস ১৬০ এর তুলনামূলক রিভিউ । Honda CB Hornet 160R  এর ফার্স্ট ইমপ্রেশন ভিডিও এই বছর আমাদের দেশের মার্কেটে বেশ কিছু ১৬০ সিসি রেঞ্জ এর মোটরসাইকেল এর লঞ্চ হয়েছে । ১৬৫ সিসি লিমিট বাডানো  ফলে বাইকরা এই নিয়ে খুব খুশি ও উৎসাহী । সেই পরিপেক্ষিতে বর্তমানে…

Review Overview

User Rating: 0.7 ( 2 votes)

২০১৮ সালে ১৬০সিসি এর মোটরসাইকেল বাংলাদেশের জন্য অন্যতম উপহার । বাংলাদেশে বেশ কিছু ১৬০সিসি এর মোটরসাইকেল লঞ্চ হয়েছে যেগুলো নিয়ে বেশ তর্ক-বির্তক চলছে । বর্তমানে আমাদের দেশে আলোচনার শীর্ষে রয়েছে নতুন লঞ্চ হওয়া হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর এবং বাজাজ পালসার এনএস ১৬০ । তাহলে চলুন দেখে আসি হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম বাজাজ পালসার এনএস ১৬০ এর তুলনামূলক রিভিউ ।

Honda CB Hornet 160R  এর ফার্স্ট ইমপ্রেশন ভিডিও


বনাম

এই বছর আমাদের দেশের মার্কেটে বেশ কিছু ১৬০ সিসি রেঞ্জ এর মোটরসাইকেল এর লঞ্চ হয়েছে । ১৬৫ সিসি লিমিট বাডানো  ফলে বাইকরা এই নিয়ে খুব খুশি ও উৎসাহী । সেই পরিপেক্ষিতে বর্তমানে হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর এবং বাজাজ পালসার এনএস ১৬০ বাইকারদের আগ্রহের কারন হয়ে দাড়িয়েছে ।

হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম বাজাজ পালসার এনএস১৬০ – এ্যাপিয়েরেন্স

হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম বাজাজ পালসার এনএস১৬০ এর তুলনামূলক রিভিউতে সব থেকে প্রথম বিষয়টি হল তার লুক ও এ্যাপিয়েরেন্স । এখানে দুটো বাইক এর ডিজাইন করা হয়েছে স্ট্রিট স্পোর্টস বাইকের মতন । দুটো বাইকের মডেলে কাটিং এ্যাজড করা হয়েছে স্পোর্টি ও এর থিম করা হয়েছে মাসলড টাইপ এর ।

এখানে হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর এর পুরো বডি সলিড প্ল্যাস্টিক প্যানেল দিয়ে ডিজাইন করা হয়েছে । প্যানেলগুলোর কার্ভগুলো হল মাসলড , এ্যাজি , সেমি ম্যাট , গ্লোসি ও কার্বন ফিনিশ । ফুয়েল ট্যাংক বেশ বড় সাইজের এবং ডিজাইন এর উপর নির্ভর করে এর হেডল্যাম্প এর ডিজাইন করা হয়েছে ।

বাইকটার রিয়ার পার্ট এর দিকটা অনেক বেশি আকর্ষনীয়। এক্স-সেপড এলইডি টেইল ল্যাম্প সাথে ডাবল হর্ন হর্নেট এর ডিজাইনকে আরো আকর্ষিত করে তুলেছে । এর রিয়ার ওয়াইডার টায়ার বাইকটার ম্যাচো এ্যাটিচিউডকে আরো বাড়িয়ে তুলেছে ।

বাজাজ পালসার এনএস ১৬০ এর ডিজাইন ও বেশ স্টাইলিশ ও আকর্ষনীয় করা হয়েছে । এই বাইকটির বডিও প্ল্যাস্টিক বডি প্যানেল দিয়ে করা হয়েছে । প্যানেলগুলো সেগমেন্ট আকারে পৃথক করা হয়েছে । বাইকটির ডিজাইন নেকড স্পোর্টস বাইক হিসেবে ডিজাইন করা হয়েছে ।

বাইকটির হেডল্যাম্প এবং ফুয়েল ট্যাংক এর সাইজ এর ডিজাইন নেওয়া হয়েছে পালসার এনএস সিরিজ থেকে । এর নতুন মাল্টি শেড গ্র্যাফিক্স এর হি-ম্যান এ্যাপিয়েরেন্সকে আরো উন্নত করে দিয়েছে । মোটরসাইকেলটির রিয়ার পার্টও নেকড । বাইকটির সিট স্লিপ টাইপের এবং টেইল ল্যাম্প স্ল্যাশড পালসার সিরিজ এর মতন । এনএস ১৬০ তে কোন এক্সটেন্ড মাফলার নেই এনএস ২০০ তেও এক্সটেন্ড মাফলার নেই ।

honda cb hornet 160r vs pulsar ns160 wheel brake suspension 768x392

হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম পালসার এনএস ১৬০ – হুইল , ব্রেক এবং সাস্পেনশন

ডিজাইন ও লুক এর দিক দিয়ে হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর এবং পালসার এনএস ১৬০ দেখতে অসাধারন । তবুও মোটরসাইকেলে কিছু কিছু বিষয় থাকে যা মানুষের চয়েস এক এক রকম করে ।

লুক ও ডিজাইন এর পর দুটো মোটরসাইকেল এর এ্যাপিয়েরেন্স এর দিক দিয়ে এদের কম্পিটেশন খুব ভাল । মোটরসাইকেল এর হুইল , ব্রেক এবং সাস্পেশন বাইকের একটি গুরুত্বপূর্ন অংশ । কিন্তু দুটো বাইকের ফিচারস এবং এ্যাবেলিটি ভিন্ন ভিন্ন ।

হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর এর হুইল এর সাইজ বাজাজ পালসার এনএস ১৬০ এর হুইল থেকে বেশি বড় । বাইকটির ফ্রন্ট টায়ার হল ১০০/৮০-১৭ এবং রিয়ার টায়ার হল ১৪০/৭০-১৭ যেখানে এনএস ১৬০ এর ফ্রন্ট ৮০/১০০-১৭ এবং রিয়ার ১১০/৮০-১৭ । যার কারনে হর্নেট এর টায়ারে বেশি ব্যালেন্স এবং চালানোর সময় সহজে কন্ট্রোল করা যায় ।অন্যদিকে পালসার এনএস১৬০ লক্ষ্য রাখে ফাস্টার এ্যাকসেলিরেশন , স্পিড এবং মাইলেজ ফিচার এর উপর ।

এখানে দুটো বাইকের টায়ারগুলো হল টিউবলেস এবং রিমগুলো এ্যলয় রিম । কিন্তু দুটো বাইকের ব্রেকিং সিস্টেম একই রকম । দুটো বাইকের ফ্রন্ট এ হাইড্রলিক ডিস্ক ব্রেক এবং রিয়ার এ ড্রাম ব্রেক দেয়ার হয়েছে। এখানে হর্নেট এর ডিস্ক সাইজ এনএস ১৬০ থেকে বেশি বড় । খুব শীঘ্রই দুটো চাকাতেই ডিস্ক ব্রেক ভার্সন মার্কেটে আসতে পারে ।

সাস্পেশন সিস্টেম এর দিক দিয়ে হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম পালসার এনএস১৬০ এর সাস্পেশন সিস্টেম প্রায় এক রকম । এখানে দুটো মোটরসাইকেল এর ফ্রন্ট হল টেলিস্কোপ হাইড্রোলিক টাইপ এবং রিয়ার মনো সাস্পেশন দেয়া হয়েছে। এখানে হর্নেট এর ফ্রন্ট সাস্পেশন ডায়ামিটার বেশ মোটা এবং রিয়ার এ্যাডজাস্টটেবল টাইপ । অন্যদিকে এনএস ১৬০ এর রিয়ার সাস্পেশন নাইট্রোক্স গ্যাস চার্জড এবং এর স্টীফনেস ও এ্যাডজাস্টটেবল ।

honda cb hornet 160r vs pulsar ns160 feature comparison review 768x370

হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম পালসার এনএস ১৬০ – রাইডিং এন্ড কন্ট্রোলিং

রাইডিং এবং কন্ট্রোল এর দিক দিয়ে হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম পালসার এনএস ১৬০ এর ফিচারস এক এক রকম । এখানে দুটো মোটরসাইকেলের ডিজাইন করা হয়েছে স্পোর্ট রাইডিং এর মত কিন্তু শহর ও হাইওয়েতেও চালানোর জন্য বেশ কর্ম্ফোরটেবল ।

এখানে হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর এর রাইডিং স্টাইল স্পোর্টি টাইপের । কিন্তু অন্যদিকে পালসার এনএস১৬০ এ্যাগ্রেসিভ রাইডিং স্টাইল এর উপর গুরুত্ব দিয়েছে । এখানে আমরা বলব যে দুটো বাইকের রাইডিং পজিশন এর পার্থক্য খুবই সামান্য । কিন্তু আবারো হর্নেট ১৬০আর কর্ম্ফোটেবল এবং কনফিডেন্ট রাইডিং এর উপর বেশি গুরুত্ব দিয়েছে । কিন্তু অন্যদিকে পালসার এনএস১৬০ স্পোর্টস রাইডিং এর উপর গুরুত্ব দিয়েছে ।

ফিচার এর দিক দিয়ে হর্নেট সিটিং সিস্টেম এ কার্ভ ডিজাইন করা হয়েছে । হ্যান্ডেলবারটি হল পাইপ হ্যান্ডেলবার। কিন্তু এনএস১৬০ এর হ্যান্ডেলবার স্পিল্ট এবং স্পিল্ট সিটিং সিস্টেম ।

আবার ওয়েট , গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স এবং স্যাডেল হাইট এর দিক দিয়ে দুটো মোটরসাইকেল এর পজিশন একই রকম । এদের মধ্যে পার্থক্য খুব কম কিন্তু ন্যারো ডিমেনশন টায়ার এর জন্য এনএস১৬০ ছোট গলিতে চালানো খুব সহজ এবং হর্নেট সাধারনত রেগুলার রাস্তায় চালানোর জন্য খুব কম্ফোরটেবল ।

honda cb hornet 160r vs pulsar ns160 engine specification 768x367

হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম পালসার এনএস ১৬০ – স্পেসিফিকেশন পার্থক্য

পার্থক্য এর দিক দিয়ে হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম পালসার এনএস ১৬০ এর পাশাপাশি আমরা মোটরসাইকেল এর অফিশিয়াল স্পেফিকেশন এর তুলনা তুলে ধরছি আপনাদের সুবিধার জন্য । নিচে হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম পালসার এনএস ১৬০ এর  স্পেসিফিকেশন পার্থক্য তুলে ধরা হল ছক আকারেঃ

SpecificationHonda CB Hornet 160RBajaj Pulsar NS160
EngineAir Cooled, 4 Stroke,2-Valve, SI EngineSingle Cylinder, Four Stroke, Oil Cooled, 4-Valve DTS-I Engine
Displacement162.71 cc160.3cc
Bore x Stroke57.30mm x 63.09mmNot Found
Compression Ratio10:1Not Found
Maximum Power11.68 KW (15.66BHP) @ 8,500RPM11.6KW (15.3 BHP) @ 8,500RPM
Maximum Torque14.76 Nm @ 6,500RPM14.6 NM @ 6,500RPM
Fuel SupplyCarburetorCarburetor
IgnitionCDICDI (with multi-mapping)
Starting MethodElectric & Kick StartElectric & Kick Start
Clutch TypeWet, Multiple-DiscWet, Multiple-Disc
LubricationWet SumpWet Sump
TransmissionConstant mesh 5-speed, 1-N-2345Constant Mesh 5-speed
Dimension
Frame TypeDiamondDiamond
Dimension (LxWxH)2,041mm x 783mm x 1,067mm2,012mm x 803mm x 1,060mm
Wheelbase1,345mm1,363 mm
Ground Clearance164mm176 mm
Saddle HeightNot FoundNot Found
Kerb Weight140(STD) / 142(CBS) KG142 Kg
Fuel Capacity:12 Liters12 Liters
Wheel, Brake & Suspension
Suspension (Front/Rear)Telescopic / Mono ShockTelescopic with Anti-friction Bush /

Nitrox mono shock absorber with Canister

Brake system (Front/Rear)Front 276mm Disc;

Rear 130mm Drum /220mm Disk

Front 240mm Hydraulic Disk;

Rear 130mm Mechanical Drum

Tire size (Front / Rear)Front: 100/80-17;

Rear: 140/70-17

Both Tubeless

Front: 80/100-17”, 46P;

Rear: 110/80-17”, 57P

Both Tubeless

Battery12V 35/35W12V Full DC MF
Head lamp12V 4Ah (MF)H4 (12V 55/60W)
SpeedometerFull DigitalDigital display with analog rev count

honda cb hornet 160r vs pulsar ns160 engine performance 768x420

হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম পালসার এনএস ১৬০ – ইঞ্জিন এবং ফিচার

অফিশিয়াল স্পেসিফিকেশন তুলনার পরে আমরা আপনাদের কাছে দুটো মোটরসাইকেল এর ইঞ্জিন ফিচারস তুলে ধরব । হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম পালসার এনএস ১৬০ এর ইঞ্জিন এর ক্যাপাসিটি এবং দক্ষতা প্রায় কাছাকাছি । কিন্তু বেশি আলোচনা তুলে ধরা সম্ভব হচ্ছে না কারন বাজাজ এনএস১৬০ এর ইঞ্জিন এর কিছু বিষয় প্রকাশ করে নাই ।

হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর এর ইঞ্জিন পালসার এনএস ১৬০ থেকে একটু বড় । হর্নেট ১৬০আর এর ইঞ্জিন পাওয়ার ও টর্ক এর রেশিওর দিক দিয়ে এনএস১৬০ এর ইঞ্জিন রেশিও থেকে হালকা। হর্নেট এর কম্প্রেশন রেশিও ১০ঃ১ এবং সিলিন্ডার লংয়ার স্ট্রোক টাইপের। লো-মিড রেঞ্জ এ্যাকসেলিরেশন এবং পাওয়ার ডেলিভারির জন্য হর্নেট বেশ ভাল ।

অন্যদিকে তুলনামূলক রিভিউতে আমাদের কাছে কোন অফিশিয়াল তথ্য নেই বাজাজ পালসার এনএস১৬০ এর ইঞ্জিন উপর । কিন্তু অন্যদিক দিয়ে কিছু তথ্যর মাধ্যমে আমরা ধারনা করতে পারি যে বাইকটির ইঞ্জিন বেশ দ্রুত এবং এটাতে ফোর ভাল্ব এবং ডিটিএস-১ ফিচারস রয়েছে । ন্যারো টায়ার এর জন্য এনএস ১৬০ টপ স্পিড এর দিক দিয়ে এগিয়ে থাকবে আমাদের ধারনা মতে ।

honda cb hornet 160r vs pulsar ns160 riding controlling comparison 768x433

হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম পালসার এনএস ১৬০ – সার সংক্ষেপ

অতএব পাঠকেরা , আলোচনার পর বলব যে হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর বনাম পালসার এনএস ১৬০ সর্ম্পকে আরো কিছু বলতে চাই। কোন সন্দেহ নেই যে দুটো বাইক এর ডিজাইন , লুকস এবং ফিচারস খুবই ভাল ।

আপনি যদি রাইডার হিসেবে স্পোর্টস এর জন্য বাইক ব্যবহার করতে চান তাহলে বাজাজ পালসার এনএস ১৬০ খুব ভাল হবে আপনার জন্য। কিন্তু আপনি যদি লং ড্রাইভ এর জন্য বাইক ব্যবহার করতে চান তাহলে হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর আপনার জন্য ভাল হবে।

হোন্ডা সিবি হর্নেট ১৬০আর এর বর্তমান দামঃ১,৯৯,৮০০ টাকা

পালসার এনএস ১৬০ এর বর্তমান দামঃ ১,৯৯,৫০০ টাকা

আমরা টেস্ট রাইড এর পর আপনাদের আরো তথ্য দিতে পারব মোটরসাইকেল দুটির বিষয়ে। নিরাপদভাবে গাড়ি চালান এবং নিরাপদ থাকুন এবং আমাদের সাথে থাকুন । ধন্যবাদ সবাইকে ।

About Arif Raihan opu

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*