রানার স্কুটি ১১০ ফিচার রিভিউ – নতুন পথের সাথী

রানার স্কুটি ১১০ রানারের একটি নতুন স্কুটার, যা তাদের ২০২০ সালের প্রডাক্টলাইনে নতুন যুক্ত হয়েছে। স্কুটারটি একটি সম্পূর্ণ নতুন ডিজাইন ও নতুন সব ফিচার নিয়ে বাজারে এসেছে। সুতরাং, স্কুটারটির সামগ্রিক প্রোফাইল নিয়ে আমরা রানার স্কুটি ১১০ ফিচার রিভিউ  নিয়ে হাজির হয়েছি।

রানার স্কুটি ১১০ ফিচার রিভিউ

রানার স্কুটি ১১০ ফিচার রিভিউ – নতুন পথের সাথী

রানার অটোমোবাইলস লিমিটেড তাদের 2020 প্রডাক্টলাইনে নতুন স্কুটি ১১০ স্কুটারটি সংযুক্ত করেছে। স্কুটারটি তাদের আপডেটেড শোকেসে সম্পূর্ণ নতুন একটি সংযোজন। এটি বেশ স্লিক, সিম্পল, আর অনন্য কমিউটিং ফিচারযুক্ত একটি স্কুটার, যা যথেষ্ট দৃষ্টিনন্দন ও বেশ উপযোগী একটি প্রোফাইল নিয়ে এসেছে।

বাহ্যিক লুকের ক্ষেত্রে নতুন এই স্কুটারটি বেশ চমৎকারভাবে অন-বোন স্ট্র্যাকচারে ডিজাইন করা। ফলে রাইডারের ফুটরেষ্টে এর ফ্লোরবোর্ডটি বেশ প্রশস্ত এবং ইঞ্জিনটি সিটের নীচে স্থান পেয়েছে। এর সামনের দিকটায় বেশ চমৎকার এ্যারোডাইনামিক প্যানেল রয়েছে। এতে ইন্ডিকেটর লাইটগুলি প্যানেল-মাউন্টেড, যা সামনের হুইল ফেন্ডারের সাথে মিলিয়ে চমৎকার সমন্বয় পেয়েছে।

স্কুটারটির হেডল্যাম্পটি এর ককপিটের সাথেই মাউন্ট করা। এটি বেশ বড় একটি এ্যাসেম্বলি, যার পরেই অ্যানালগ ওডো-মিটারটি রাইডারের মুখের দিকে ঢালুভাবে বসানো। এর ড্যাশবোর্ডটির দুপাশে কন্ট্রোল সুইচগুলি চমৎকারভাবে সমন্বিত। আর এর নীচেই রয়েছে দুটি প্যানেল-মাউন্টেড পকেট। এতে রাইডার অনায়াসেই গ্লোভস, গগলস, বা ব্যক্তিগত অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র রাখতে পারেন।

স্কুটারটির সিটটি একটি সিঙ্গেল-পিস সিট। এতে রাইডার সিটটি চমৎকার কার্ভযুক্ত। এটি রাইডারকে বিভিন্ন সিটিং-পজিশনে বসার সুবিধা দেয়। আর এর পিলিয়ন সিটটি বেশ প্রশস্ত এবং সহায়ক হিসেবে রয়েছে একটি ভারী মেটাল গ্র্যাবরেইল। এটি নিরাপদে বসা ও স্কুটারটি নিয়ন্ত্রনে সহায়তা করে। এছাড়াও এতে আরও রয়েছে আন্ডার-সিট স্টোরেজ কম্পার্টমেন্ট যা দৈনন্দিন ব্যবহারের জন্য সুবিধাজনক একটি ফিচার।

স্কুটারটির পিছনে রয়েছে একটি বড় প্যানেল-মাউন্টড টেইলল্যাম্প আর বডি-ফিনিশড ইন্ডিকেটর লাইট। সেইসাথে রয়েছে এর স্পের্টি প্রফাইলের সাথে মানানসই চমৎকার রাউন্ডেড রিয়ার-সাইড প্যানেল।  যা সামগ্রিকভাবে স্কুটারটিকে খুব সিম্পল ও সমন্বিত একটি ডিজাইন দিয়েছে। তবে সব মিলিয়ে এটি অবশ্যই একটি নান্দনিক স্পোর্টি-প্রফাইল ধারন করে যা আধুনিক রাউডারদের সাথে সহজেই মানিয়ে যায়।

runner-skooty-110-feature-power-performance

ফ্রেম, হুইল, ব্রেক, এন্ড সাসপেনশন সিস্টেম

নতুন রানার স্কুটি ১১০ সচরাচর স্কুটারের মতোই একটি অন-বোন ফ্রেমে ডিজাইনকৃত। ফলে এর সামনে রাইডারের ফুটরেস্টে একটি প্রশস্ত প্ল্যাটফর্ম রয়েছে। অন্যান্য বৈশিষ্ট্যগুলিতে, স্কুটারটির দুচাকাতেই রয়েছে 10″ এ্যালয়-রিম ও টিউবলেস টাইপ টায়ার।

ব্রেকিং সিস্টেমে এর সামনের চাকায় রয়েছে হাইড্রলিক ডিস্ক ব্রেক আর পেছনের চাকায় রয়েছে ড্রাম-টাইপ ব্রেক। আর সাসপেনশন সিস্টেমে স্কুটারটির সামনে রয়েছে টেলিস্কোপিক হাইড্রোলিক সাসপেনশন সিস্টেম আর পেছনে রয়েছে সুইংআর্ম সংযুক্ত সিঙ্গেল সাসপেনশন।

হ্যান্ডেলিং এন্ড কন্ট্রোলিং ফিচার

নতুন রানার স্কুটি ১১০ বেশ সমন্বিত ফিচারের চমৎকার একটি স্কুটার। এতে বেশ সহজ হ্যান্ডলিং এবং কন্ট্রোলিং ফিচারের সমন্বয় করা হয়েছে। স্কুটারটির এক্সটেরিয়র ডিজাইনে সব লাইট ও ইন্ডিকেটরগুলি বডি-ফিনিশড ও প্যানেল মাউন্টেড।

পিলিয়ন ফুটরেস্টগুলিও রাইডারের ফ্লোরবোর্ডের পিছনেই একই পৃষ্ঠে বসানো, ফলে আলাদা বাড়তি জায়গা দখল করেনি। আর এর রাউন্ডেড পলিশড ও কার্ভড বডি প্যানেলের ফলে এটি সিটি ট্রাফিক বা যেকোন সংকীর্ণ স্থানে সহজেই চলাচল করতে পারে। এছাড়াও এতে রয়েছে একটি ভারী মেটাল গ্র্যাবরেইল। এটি স্কুটারটিকে খুব সহজে হ্যান্ডেল করার পাশাপাশি নিরাপদ পিলিয়ন সিটিংয়ের সুবিধা দেয়।

এছাড়াও ৭৬০মিমি লোয়ার স্যাডল-হাইট ও ১৫০মিমি গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স এতে সুবিধাজনক রাইডিংয়ের বাড়তি সুবিধা দেয়। আর কিক ও ইলেকট্রিক স্টার্ট, সাইড ও সেন্টার স্ট্যান্ড, একাধিক স্টোরেজ-পিট প্রভৃতি সুবিধাগুলি পুরোপুরি এর কমিউটিং ফিচার আরো বাড়িয়ে দিয়েছে।

রানার স্কুটি ১১০ ফিচার রিভিউ

রানার স্কুটি ১১০ ইঞ্জিন ফিচার

রানার স্কুটি ১১০ একটি চমৎকার ফিচারযুক্ত স্কুটার। এটি সম্পূর্ণ অটোমেটিক একটি পেট্রোল ইঞ্জিন নিয়ে এসেছে। এটি একটি 104সিসির সিঙ্গেল-সিলিন্ডার, ফোর-স্ট্রোক, এয়ার-কুলড, 2-ভালভ ইঞ্জিন। ইঞ্জিনটি কার্বুরেটর ফুয়েল ফিডিং সিস্টেম ও এ্যাডভান্সড ভেরিয়েবল এইচটি কয়েল সিডিআই ইগনিশন সিস্টেমযুক্ত।

এখানে ক্লাচ এবং গিয়ার সিস্টেম ফুল্লি অটোমেটিক। তাই এতে ম্যানুয়াল গিয়ার বা ক্লাচ অপারেটিংয়ের কোনও ঝামেলাই নেই। শুধুমাত্র থ্রটলের মাধমেই এর স্পিড পরিচালিত ও নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে। এতে আরো রয়েছে সুবিধাজনক কিক ও ইলেকট্রিক স্টার্ট সিস্টেম। ফলে বিভিন্ন কন্ডিশনে স্কুটারটি সহজেই স্টার্ট করা যায়।

এসব বৈশিষ্ট্যের সাথে সাথে রানার স্কুটি ১১০ এর এই ইঞ্জিনটি সর্বোচ্চ 5.2kW পাওয়ার এবং 7NM টর্ক উৎপাদন করতে পারে। আর সেইসাথে এর  10: 1 কম্প্রেশন রেশিও এটিতে উল্লেখযোগ্য ভালো ফুয়েল ইকোনমির নিশ্চয়তা দিতে পারে।

runner-skooty-110-feature-specification-price-review

Runner Skooty 110 Specification

SpecificationRunner Skooty 110
EngineSingle Cylinder, Four-Stroke,

Air Cooled, 2-Valve Engine

Displacement104cc
Bore x Stroke50.0mm x 53.0mm
Compression Ratio10:1
Maximum Power5.2kW (7.02BHP) @7,500RPM
Maximum Torque7NM @6,500RPM
Fuel SupplyCarburetor
IgnitionCDI
Starting MethodKick & Electric Start
Clutch TypeAutomatic
LubricationWet Sump
TransmissionAutomatic

Dimension

Frame TypeOn-Bone Frame
Dimension (LxWxH)1,780mm x770mm x 1,230mm
Wheelbase1,270mm
Ground Clearance150mm
Saddle Height760mm
Weight (UNLADEN)
Fuel Capacity

Wheel, Brake & Suspension

The Suspension

(Front/Rear)

Telescopic Hydraulic Shock Absorbers

Spring Loaded Single Shock Absorber

Brake system

(Front/Rear)

Front: Disc

Rear: Drum

Tire size (Front / Rear)Front: 3.5-10

Rear: 3.5-10

Both Tubeless

Battery12V 6AH, MF Battery
Headlamp12V, 35/35W
SpeedometerFully Digital

*All the specifications are subject to change upon company rules, policy, offer & promotion. BikeBD is not liable for the changes.

About Saleh Md. Hassan

it's Saleh, a homebound stranger; sometimes unleashes the inner ascetic to trail like an outlaw.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*