যেসকল কারনে একজন বাইকারকে বিয়ে করবেন না!

সাধারনত পাত্র হিসেবে বাইকারদের চাহিদা প্রচুর। বাইকাররা সর্বদাই স্টাইলিশ ও হ্যান্ডসাম, এবং তারা খুবই মনখোলা মানুষ হন বলে অনেক ক্ষেত্রেই বিয়ের বাজারে বাইকার পাত্র অগ্রাধিকার পায়। কিন্তু, এরপরেও কিছু ব্যাপার রয়েছে, যেসকল কারনে কখনোই একজন বাইকারকে বিয়ে করা উচিত না! আজ আমরা বিস্তারিত জানাবো সেসকল কারনগুলো, যেকারনে একজন বাইকারকে বিয়ে করবেন না!

বাইকারকে বিয়ে

বাইকার এর কাছে সর্বদাই সবচাইতে প্রিয় জিনিস তার মোটরসাইকেল। সে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত নিজের মনোযোগ এর সর্বোচ্চটুকুই দেবে তার মোটরসাইকেলকে, কাজেই যদি আপনি এই ব্যাপারটা মানিয়ে না নিতে পারেন, তবে কখনোই একজন বাইকারকে বিয়ে করবেন না।

বাইকাররা সাধারনত ঘুরতে খুব ভালোবাসেন। কোনপ্রকার পূর্ব পরিকল্পনা ছাড়াই ছুটির দিনে তারা মোটরসাইকেল নিয়ে দূর দূরান্তে চলে যাবেন, হয়তো সারাদিন কাটিয়ে তারপর আসবেন। হুটহাট এসকল ঘোরাফেরায় আপনার যদি আপত্তি থাকে বা ব্যাপারটা যদি আপনি একদমই পছন্দ না করেন, তবে কখনোই একজন বাইকারকে বিয়ে করবেন না। পরবর্তীতে এই ব্যাপার নিয়ে দাম্পত্য কলহের সৃষ্টি হতে পারে।

dot ece snell acu certified motorcycle helmet মোটরসাইকেল হেলমেট

বাইকাররা সাধারনত সেফটি নিয়ে কোনপ্রকার কম্প্রোমাইজ করেন না। মোটরসাইকেলে করে ঘোরার সময় অবশ্যই নিজের পাশাপাশি নিজের স্ত্রীর সেফটি নিয়েও কোনপ্রকার কমপ্রোমাইজ করবেন না। কাজেই, আপনার যদি নিজের সেফটির জন্য হেলমেট পড়তে কোনপ্রকার আপত্তি থাকে বা আপনি বিষয়টাকে মানতে না পারেন, তবে একজন বাইকারকে কখনোই বিয়ে করবেন না।

অনেক বাইকারই নিজের এবং নিজের পরিবারের প্রতি খুবই সচেতন। বেশিরভাগ সময়েই স্ত্রী এবং সন্তানকে নিয়ে বের হবার সময় বাইকার বাইক নিয়ে বের হন না, অন্য কোন পরিবহন যেমন গাড়ি বা  ট্যাক্সিতে করে পরিবার নিয়ে যাত্রা করেন। অনেক ক্ষেত্রেই হয়তো অনুরোধের পরেও বাইকার তার প্রিয়জনদের নিয়ে বাইকে করে যাত্রা করবেন না, কাজেই এই ব্যাপারটা নিয়ে যদি আপনার আপত্তি থাকে, তবে একজন বাইকারকে বিয়ে করবেন না।

 

motorcycle fuel economy in rainy season

সাধারনত বাইকাররা অনেক জেদী প্রকৃতির হন। এর ফলে, যেকোন বিষয় নিয়ে হয়তো হুটহাট জেদ করতে পারেন তিনি। যদি এই জেদ না কাটিয়ে বরং ছোটখাটো বিষয় নিয়ে ঝগড়া করেন, তবে একজন বাইকারকে বিয়ে না করাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

একজন বাইকার হয়তো  নিয়মিত বড় রকমের উপহার দিতে পারবেন না আপনাকে। তবে, নিয়মিতই একদম ছোটখাটো টুকটাক জিনিস উপহার হিসেবে নিয়ে আসবেন আপনার জন্য। যদি আপনি প্রতিনিয়ত বড় বা দামী উপহার আশা করে থাকেন, তবে আপনি আশাহত হবেন, এবং সেক্ষেত্রে আপনার উচিত হবে একজন বাইকারকে বিয়ে না করা।

বাইকাররা সাধারনত একটু আড্ডাবাজ প্রকৃতির হন। প্রায়ই হয়তো অফিস বা ব্যবসার পরে বন্ধুবান্ধব বা ভাইদের সাথে আড্ডা দিয়ে বাড়িতে ফিরবেন, অথবা বাইক নিয়ে সবাই আশেপাশেই একটু ঘুরেফিরে তারপর বাসায় আসবে। যদি এই ছোটখাটো আড্ডা বা ঘোরাঘুরিতে সামান্য অভিমানের বদলে আপনি যদি বড় রকমের ঝগড়া করেন, তবে অবশ্যই একজন বাইকারকে বিয়ে করবেন না।

motorcycle fuel economy in high altitude

দিনশেষে, বিয়ে জীবনের অনেক বড় একটি ব্যাপার, অনেক বড় একটি সিদ্ধান্ত। তাই, এই সিদ্ধান্তটা ভেবেচিন্তে নেয়া উচিত। বাইকার বা নন-বাইকার, বিয়ে করুন এমন একজন মানুষকে, যাকে আপনি সুখী রাখতে পারবেন, এবং যার সাথে আপনি সুখী থাকবেন।

About আহমেদ স্বজন

shazon.bikebd@gmail.com'

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*