নতুন মোটরসাইকেল কেনার আগে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখা দরকার

বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ এবং বেশীরভাগ মানুষই মিডলক্লাস ফ্যামিলির । সো , বেশীরভাগ মানুষের অফিসে বা তার কর্মক্ষেত্রে যাওয়া আস বা অন্যান্য কাজের জন্য একটা বাইকের প্রয়োজন সবসময়ই আশা করে । যদি কারও অলরেডি একটা বাইক থেকে থাকে , তাহলে তার প্রবণতা থাকে আরেকটি নতুন বাইক টেস্ট করার । আর বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে এখানে সেখানে ভ্রমণ বা যাওয়া আসা করা জন্য বাইকই সর্বশ্রেষ্ট মাধ্যম ।

তো , বাইক সবসময়ই একটা মূল্যবান সম্পদ এবং অনেকের ক্ষেত্রে স্ট্যাটাসের ও একটা ব্যাপার হয়ে থাকে । তো , সাধারণত বাংলাদেশে যারা নিয়মিত ইউজের জন্য বাইক কেনে , তারা সর্বনিন্ম ৩ বছর এবং সবোর্চ্চ ১০ বা তারও বেশী বছর ধরে ইউজ করে । তাই , একটা মোটরসাইকেল কেনার আগে আমাদের সবসময়ই সতর্ক থাকতে হবে । আপনাকে অবশ্যই সবদিক বিবেচনা করে সতর্কতার সাথে বাইক চয়েজ করতে হবে। আপনার কোনটা দরকার,বা কোনটা না হলেও চলে , বা কেমন পারফরমেন্স দরকার , কেমন মাইলেজ দরকার এসব অনেক দিকে নজর রাখতে হয় বাইক কেনা আগে।

নতুন মোটরসাইকেল কেনার আগে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখা দরকার

তো , নির্দিষ্ট কিছূ নিয়ম কানুন অনুসরণ করে আপনি একটা আপনার জন্য পারফেক্ট ও ভাল বাইক কিনতে পারবেন । বাইক কেনাটাই এখানে অনেক বড় একটা ফ্যাক্ট বাংলাদেশের মিডলক্লাস ফ্যামিলির ক্ষেত্রে । সো , একটা বাইক কিনে যদি কেউ তার মনের আশা পূরণ করতে না পারে বা বাইকটির পারফরমেন্স তার মন বা আশা মত না হয় , তখন বিষয়টা আসলেই খারাপ হয় । তো , যে বিষয়গুঅে মাথায় রাখলে আপনি আপনার জন্য পারফেক্ট একটা বাইক কিনতে পারবেন সেগুলো নিচে তুলে ধরা হল :

আপনার বাজেট নির্ধারণ :

একটা বাইক কোর ক্ষেত্রে সর্বপ্রথমে আপনাকে আপনার বাজেট ঠিক করতে হবে । কারণ বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে বাজেট অনেক বড় একটা জিনিস । আপনার বাজেটই বলে দেবে আপনার জন্য কেমন টাইপের বা কোন ব্রান্ডের হতে পারে । যেমন হতে পারে আপনার বাজেট হল ১২০০০০ থেকে ১৬০০০০ এ ভেতর । সো আপনাকে তখন খুজে বের করতে হবে এই বাজেটের ভেতর সবথেকে ভাল কোন বাইকগুলো রয়েছে বা কোন ব্রান্ডের কেমন বাইক রয়েছে । ফলে বাইক কেনার ক্ষেত্র্রে আপনার মেইন এবং প্রথম কাজ হল আপনার বাজেট নির্ধারণ করা ।

যে বাইক গুলো আপনি চান না সেগুলো বাদ দিন :

বাজেট নির্ধারণের পর আপনার কাজ হবে আপনি যে বাইকগুলো চান না সেগুলো বাদ দেওয়া । মানে , নিশ্চই আপনার বাজেটের ভেতর অনেকগুলো বাইক ই পড়বে । এর মধ্যে আপনি হয়ত চান না যে আপনার বাইকটাতে কোন নিদিষ্ট ফিচার না থাকুক । সেই বাইকগুলো বেছে বেছে বাদ দিন । বা হতে পারে কোন বাইকের কালার , বা লুক আপনার ভাল লাগেনি , বা কোনটার পারফরমেন্স ভাল লাগেনি । সেই বাইক গুলো বাদ দিন আপনার তালিকা থেকে । যেমন , ধরুণ আপনার বাজেট ২৫০০০০ এবং আপনি একটা রেসিং বাইক চাইবেন এবং ভাল কোয়ালিটির একটা চাইবেন । দেখা গেল আপনার বাজেটের ভেতর যে বাইকগুলো আছে তাদের ৩ টি বাদে কেউই ৪ সেকেন্ডের ভেতর ৬০ কি.মি/ঘন্টা স্পীড তুলতে পারে না । কিন্তু সেটা আপনার একটা চাহিদা যে আপনার বাইকটি ৪ সেকেন্ডের ভেতর ৬০ স্পিড তুলতে পারবে । সো , আপনার তালিকাকে সংক্ষিপ্ত করে ৩-৪ টি বাইকে নিয়ে আসুন।

শোরুমে গিয়ে একটা টেষ্ট ড্রাইভ দিন :

আপনার তালিকায় যে ৩-৪ টি বাইক রয়েছে সেগুলোর উপর একটা টেস্ট ড্রাইভ চালান । যদি বাইকগুলো আপনার বন্ধু বা রিলেটিভের ভেতর কারও না থাকে তাহলে সোরুমে চলে যান । কারণ , বাইক জিনিসটা একটা চরম ইমোশনের জিনিস । সো , সেটা কেনার আগে অবশ্যই কোন বাইকটি আপনার সাথে সবদিক থেকে প্রাকটিক্যালি যায় সেটা ফিল করে দিখুন । শোরুম এ অথরিটির সাথে বলুন যে আপনি সেখান থেকে ১ টা বাইক ১ সপ্তাহের ভেতর কিনবেই , কিন্তু তার জন্য ওই আপনি ৩-৪ টা বাইকের একটা টেস্ট ড্রাইভ দিতে চান । এভাবে আপনি আপনার জন্য যে বাইকটি সবথেকে বেশী ভাল যায় সেগুলো সিলেক্ট করুন । এবার আপনার তালিকাটা ২ টিতে নিয়ে আসুন।

বন্ধু-বান্ধবের পরামর্শ নিন :

যে বাইকটি কিনতে চাইছেন সম্পর্কে আপনার আসে পাশের লোকজন বা আত্মীয়স্বজনের অভিমত নিন । কেউ না কেউ আপনাকে কোন সদুপদেশ দিতে পারে । হয়ত দেখা যেতে পারে ওই বাইকটি তার আগে ছিল বা ওই বাইক লং টাইম রাইডিং এর এক্সপেরিয়েন্স তার আছে । সো , এই কাজা সেরে ফেলুন । 

মাইলেজের দিকে নজর একটু কমান :

সাধারণত দেখা যায় সব কোয়ালিটির মানুষই বাইক কেনার আগে মাইলেজের বিষয়টি অত্যধিক নজর দেন । কিন্তু এটা একটা ভুল ডিসিশন । ভাল মাইলেজ দিলেই যে বাইক এর কোয়ালিটিও ভাল হবে এমনটা সবসময় হয় না । হয়ত দেখা যাচ্ছে আপনার বাইকের মাইলেজ এমন যে আপনার ১ মাসে ২৫ লিটার জ্বালানী কেনা লাগে । তো দেখা গেল , একই দামের একটা বাইক , যার জন্য আপনার জ্বালানী কেনা লাগছে ২০ লিটার । কিন্তু বাইকটির রিসেইল প্রাইস কম । মানে , হয়ত ধরূন , যে দামে কিনেছেন তার অর্ধেক দামে বিক্রয় করতে হয় সাধারণত । তো , এক্ষেত্রে আপনি মাইলেজের দিকে নজর দিলে আপনার মনে হয় ক্ষতিই হবে । মাইলেজ কম হলেও ভাল ইন্জিনের বাইক কেনার চেষ্ট করুন যেটার রিসেইল প্রাইস বেশী , যেটা ব্রান্ডের বাইকের ক্ষেত্রে বেশী ঘটে থাকে ।হয়ত একারণেই ভাল ইন্জিনের কারণে জ্বালানী একটু বেশী খরচ হয় । আর যদি ভাবেন যে একটা বাইক আপনি সারা জীবন চালাবেন , তখন মাইলেজটাকেই মূখ্য হিসেবে ধরা উচিৎ। 

মার্কেটে সবথেকে ব্রান্ডের প্রচলিত বাইকগুলোর প্রতি নজর দিন :

মার্কেটে যে ব্রান্ডের বাইকগুলো সবথেকে বেশী সেল হয় আপনার লাস্ট তালিকায় যদি সে ব্রান্ডের কোন বাইক থাকে তাহলে সেটাকে বেশী গুরুত্ব দিন । কারণ , প্রোডাক্ট বেশী বিক্রয় হলে , কোম্পানীর লাভও বেশী হয় এবং তারা ভাল মানের বাইক তৈরী করার সুযোগ পায় । আর , যে বাইকগুলো বেশীরভাগ পাবলিক কিনে সেগুলো স্বাভাবিকভাবেই ভাল হয় । কারণ না হলে বাইক গুলোর ফিডব্যাক যদি খারাপ হত তাহলে এর সেল অনেক কমে যেত।

যেটা আপনি পছন্দ করেন সেটা কিনুন :

আপনার পছন্দের দিকে সবসময়ই বেশী প্রাধান্য দিন । কারণ , বাইকটি আপনার অনেক আদরের একটা জিনিস । সো , বাইকটার সাথে আপনি কসফোর্ট ফিল করেন সেটাই নিয়ে নিন । সামান্য বের্শ দাম বা বেশী মাইলেজের দিকে না তাকিয়ে আপনার পছন্দের দিকেও একটু তাকান । কারণ , এটা একটা মেন্টাল স্যটিফ্যিাকশনের একটা বিষয় । সো , এই বিষয়ে কেয়ারফুল থাকুন । আপনার কেনা বাইক নিয়ে যেন আপনার কোন অনুতাপ না থাকে ।

যদি সম্ভব হয় , তাহলে মোটরসাইকেল কেনার আগে উপরের বিষয়গুলো মাথায় রাখার চেষ্টা করবেন । আর আপনার কাছে যদি কোন টিপস থাকে তবে সেটা শেয়ার করতে পারেন ।

About শুভ্র সেন

সবাইকে শুভেচ্ছা । আমি শুভ্র,একজন বাইকপ্রেমী । ছোটবেলা থেকেই মোটরসাইকেলের প্রতি আমার তীব্র আগ্রহ রয়েছে । যখন আমি আমার বাড়ির আশেপাশে কোন মোটরসাইকেলের ইঞ্জিনের শব্দ শুনতে পেতাম, আমি তৎক্ষণাৎ মোটরসাইকেলটি দেখার জন্য ছুটে যেতাম ।২ বছর ধরে গবেষণা ও পরিকল্পনার পর আমি এই ব্লগটি তৈরী করি । আমার লক্ষ্য হল বাইক ও বাইক চালানো সম্পর্কে বাংলাদেশের মানুষের কাছে সঠিক তথ্য পৌঁছে দেয়া । সবসময় নিরাপদে বাইক চালান । আপনার বাইক চালানো শুভ হোক

One comment

  1. Ami gotokal Tangail theke Honda Hornet motorcycle kinsi but ami thaki Dhakai. Dhakai ai motorcycle na paowar karone ami immediate oikhan theke kinsi! akhon ami amar motorcycle ti dhaka theke registration korte chai. aita kivabe korbo seta ami bujtepartasi na
    plz amake ki kono suggestion deowa jabe registration kivabe korbo?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*