বাজাজ চেতাক ইলেকট্রিক স্কুটার ফিচার রিভিউ

বাজাজ চেতাক ইলেকট্রিক স্কুটার ফিচার রিভিউ। বাজাজ অটো লিমিটেড, নতুনভাবে তাদের চেতাক স্কুটার সিরিজটি চালু করেছে। সম্প্রতি তারা নতুন বাজাজ চেতাক ইলেকট্রিক স্কুটার বাজারে এনেছে। গত সেপ্টেম্বর ২০১৯ থেকে প্রডাকশন শুরু করে এবছরের জুানুয়ারীতে বাজাজ স্কুটারটি বাজারে ছেড়েছে। সেইসূত্রে নতুন এই স্কুটারটির প্রফাইলের বিস্তারিত নিয়েই আমাদের আজকের আয়োজন।

বাজাজ চেতাক ইলেকট্রিক স্কুটার ফিচার রিভিউ

অল-নিউ বাজাজ চেতাক ইলেকট্রিক স্কুটার

এই বছর বাজাজ অটো, তাদের নতুন চেতাক ইলেকট্রিক স্কুটার নিয়ে পুনরায় স্কুটার সেগমেন্টে ফিরে এলো। পেট্রল-ইঞ্জিনের পুরাতন চেতাকের বদলে নতুন চেতাক ইলেকট্রিক-মোটর চালিত। নতুন স্কুটারটি চেতাক সিরিজের ঐতিহ্য বহন করলেও এটি সম্পূর্ণ নতুন একটি স্কুটার যা প্রযুক্তি ও গঠনে পুরোপুরি আলাদা। এটি মূলত: আধুনিক ফিচার ও এলিমেন্ট দিয়ে সাজানো হয়েছে। ফলে এটি এখনকার সময়েরই তথা আধুনিক স্কুটার।

গঠনের দিক দিয়ে নতুন চেতাক ও আগের মতোই সলিড অন-বোন স্ট্রাকচারে ডিজাইন করা। এখনকার স্কুটারের মতো এর এক্সটেরিয়রে কোন প্লাস্টিক বা ফাইবার ব্যাবহার করা হয়নি। বরং পুরো এক্সটেরিয়র মেটাল বডি-ওয়ার্কে মোড়ানো। কেবলমাত্র ফুটবেড ও প্যানেলের কিছু অংশে সামান্য ফাইবার ব্যবহার করা হয়েছে। সুতরাং এটি বেশ শক্তপোক্ত ও টেকসই প্রফাইলের।

বাজাজ চেতাক ইলেকট্রিক স্কুটার ফিচার রিভিউ

স্কুটারটির এক্সটেরিয়রে বেশ চমৎকার উপবৃত্তাকার ও ফোলানো ডিজাইন দেয়া হয়েছে। এতে বেশ স্পোর্টি-কার্ভ রয়েছে যা অত্যন্ত দৃষ্টিনন্দন। আর স্কুটারটির সামনে-পেছনে, হেডল্যাম্প, টেইলল্যাম্প, ওডোপ্যানেল, সুইচগিয়ার, সিট সবই চমৎকার ও অনিন্দ্য ডিজাইনে সাজানো। ডিজাইনটিতে মূলত: প্রিমিয়াম ও ক্লাসিক টাচের সমন্বয় ঘটানো হয়েছে।

নতুন চেতাকের হেডল্যাম্প, স্পিডোমিটার ও বডিপ্যানেলে ম্যাট মেটালিক বেজেল ও গ্লেসি-ক্রোম লাইনিং, এর এক্সটেরিয়রে এক অনন্য আভিজাত্য দিয়েছে। হেডল্যাম্পটি গোলাকার ও বেশ ফোলানো। এর সামনের দিকে ডায়মন্ড রিংয়ের মতো এলইডি-ডিআরএল আর ইনহাউজ মাল্টি-পিট এলইডি হেডল্যাম্প রয়েছে । স্কুটারটির ওডোটিও পুরোপুরি গোলাকার, আর নেগেটিভ ডিসপ্লেটি পুরোটাই ডিজিটাল। আর সেইসাথে এই  পাওয়ার সেভিং ই-স্কুটারটির সকল লাইটই এলইডি টাইপের।

স্কুটারটির সামনে এবং পেছনের প্রান্তে টার্নিং-ইন্ডিকেটরগুলি সুন্দরভাবে বডি-মাউন্টেড। আর সামনে এবং পেছনের প্যানেলের উপর বাড়তি গ্রিলড-প্যানেলগুলো এটিকে একটি ক্লাসিক লুক দিয়েছে। এর সিটেও পেয়েছে 3-D কার্ভযুক্ত চমৎকার একটি স্পোর্টি ডিজাইন। আর সিটের নিচে ও সামনের প্যানেলে রয়েছে চমৎকার স্টোরেজ কম্পার্টমেন্ট। সুতরাং সামগ্রিকভাবে নতুন চেতাক একটি আধুনিক এবং দর্শনীয় একটি ডিজাইন ধারন করেছে।

ফ্রেম, হুইল, ব্রেক, ও সাসপেনশন ফিচার

বাজাজ চেতfক একটি সলিড অন-বোন ফ্রেমে তৈরি এবং শক্তপোক্ত স্টিল বডিওয়ার্ক দিয়ে মোড়ানো। স্কুটারটির হুইল, ব্রেক এবং সাসপেনশন সিস্টেম চমৎকার ফিচারযুক্ত। এতে রয়েছে 12” সাইজ হুইল, যা ১২-স্পোকযুক্ত অ্যালয়-রিম এবং ওয়াইডার প্রোফাইল টায়ারযুক্ত।

এর ব্রেকিং সিস্টেমে ফ্রন্ট হুইলে বাজাজ দুটি অপশন রেখেছে। প্রিমিয়াম মডেলটির সামনের হুইলে রয়েছে হাইড্রোলিক ডিস্ক-ব্রেক এবং আরবান মডেলটির সামনে রয়েছে ড্রাম-টাইপ ব্রেক। এছাড়া দুটি মডেলেরই পেছনের হুইলে রয়েছে একই ফিচারের ড্রাম-টাইপ ব্রেকিং সিস্টেম।

বাজাজ চেতাক ইলেকট্রিক স্কুটার ফিচার রিভিউ

এছাড়াও স্কুটারটির, ব্রেকিং সিস্টেম বাজাজের মতে একটি রিজেনারেটিভ ব্রেকিং ফিচারযুক্ত। এটি নূন্যতম দুরত্বের মধ্যেই নিরাপদ ব্রেকিং নিশ্চিত করে। আর এর লিঙ্ক-ব্রেকিং সিস্টেম পেছনের ব্রেক-লিভারের মাধ্যমে দুই চাকাতেই কম্বাইন্ড ব্রেকিং নিশ্চিত করে।

সাসপেনশন সিস্টেমের ক্ষেত্রে নতুন ইলেকট্রিক চেতাক সামনের দিকে ট্রেইলিং-লিঙ্ক সাসপেনশনযুক্ত। এটি একটি সিঙ্গেল ইউনিট, যা স্প্রিং-লোডেড সিলড-হাইড্রোলিক টাইপের। এছাড়াও পেছনের সেটআপটিও প্রায় একই ধরনের স্প্রিং-লোডেড সিলড-হাইড্রোলিক টাইপের, যা সিঙ্গেল সুইং-আর্মের সাথে সংযুক্ত। সুতরাং বলা যায় চেতাক ক্লাসিক স্কুটার সাসপেনশন সেটআপের সাথে ট্রেন্ডি ফিচারের সমন্বয় ঘটিয়েছে।

বাজাজ চেতাক ইলেকট্রিক স্কুটার ফিচার রিভিউ

বাজাজ চেতাক ইলেকট্রিক স্কুটার এর পাওয়ারহাউজ

নতুন বাজাজ চেতাক সম্পূর্ণ নতুন একটি ইলেকট্রিক স্কুটার। ফলে পূর্বের পেট্রোল ইঞ্জিনের বদলে এতে একটি আধুনিক উচ্চ-ক্ষমতার এবং পরিবেশ-বান্ধব বৈদ্যুতিক মোটর যুক্ত করা হয়েছে। মোটরটি স্কুটারের সুইং-আর্মের সাথে বসানো, ফলে তা সরাসরি পেছনের চাকায় পাওয়ার দিতে পারে। আর সেকারনেই এর পাওয়ার ডেলিভারি অত্যন্ত দ্রুত এবং ফ্রিকশন-ফ্রি।

বৈদ্যুতিক মোটরটি একটি শক্তিশালী লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারি দিয়ে চালিত যা স্কুটারটির সিটের নিচেই মাউন্ট করা। এটি ডিটাচেবল, মেইনটেন্যান্স-ফ্রি, ও রিচার্জেবল। ফলে ইনহাউস রিচার্জিং ইনলেটটি স্কুটারের পিছনেই মাউন্ট করা এবং স্কুটারের সাথেই এর চার্জিং কেবল সরবরাহ করা হয়।

একটি সম্পূর্ণ চার্জযুক্ত ব্যাটারি স্কুটারটিকে মোটামুটি ৯৫ কিলোমিটারেরও বেশি চালাতে পারে। ব্যাটারিটি প্রায় ৫ ঘন্টায় পুরোপুরি চার্জ হয় এবং ১ ঘন্টার মধ্যেই এটি ২৫% চার্জ নিতে পারে। বাজাজ এর ব্যাটারিতে ৩ বছরের অথবা ৫০,০০০ কিলোমিটার রাইডিংয়ের ওয়ারেন্টি দিচ্ছে।

বাজাজ এর মতে, এটিতে প্লাগ লাগান, চার্জ করুন এবং রাইডে যান। এটি এমনই সহজ একটি বিষয়। আর ইলেকট্রিক স্কুটার হওয়ার কারণে চেতাক ইকো-ফ্রেন্ডলি এবং ইন্টেলিজেন্টলি পাওয়ার কনশাস। এর ইন্টেলিজেন্ট কম্পিউটিং সিস্টেম অবিচ্ছিন্নভাবে রাইডিং কন্ডিশন, রাইডিং ডিসটেন্স, পাওয়ার কন্জাম্পশন, এবং ব্যাটারি পাওয়ার কন্ডিশনকে ব্যালান্স করে। ফলে এটি একটি নির্ভাবনাযুক্ত আরামদায়ক রাইডিং নিশ্চিত করে।

বাজাজ চেতাক ইলেকট্রিক স্কুটার ফিচার

মূলত: বিদ্যুৎ-সাশ্রয় এবং পরিবেশ-বান্ধব প্রবণতা অনুসরন করে বাজাজ এই ইলেকট্রিক চেতাক বাজারে এনেছে। সেইসাথে আধুনিক কমিউটিংয়ের প্রয়োজনগুলো মেটানোর জন্যেই এর ফিচার ডিজাইন করা হয়েছে। ফলে এটি তার প্রতিদ্বন্দ্বীদের তুলনায় বলা যায় একধাপ এগিয়ে রয়েছে। সুতরাং আলোচনার শেষে নতুন এই স্কুটারটির বৈশিষ্ট্যগুলো আরেকবার দেখে নেয়া যাক।

বাজাজ চেতাক ইলেকট্রিক স্কুটার ফিচার রিভিউ

  • বাজাজ প্রিমিয়াম ও আন-ম্যাচড ডিজাইনসহ এটিকে ভবিষ্যতের বাহন হিসেবে পরিচিতি দিয়েছে।
  • অন-বোন ফ্রেম ও ওয়াটার-রেজিস্ট্যান্ট মেটাল বডি-ওয়ার্ক এটিকে প্রিমিয়াম ও ডিউরাবল কন্সট্রাকশন দিয়েছে।
  • স্মুথ ও ওয়েল-ফিনিশড ক্লাসিক বডি-কার্ভ স্কুটারটিকে এক অন্যমাত্রার এ্যারোডাইনামিক শেপ দিয়েছে যাতে চেতাকের “সি” সিগনেচারও প্রতিফলিত হয়েছে।
  • এতে রয়েছে নতুন ডাইনামিক হেডল্যাম্প এসেমব্লী, যাতে রয়েছে ডায়মন্ড-রিং সদৃশ LED-DRL এবং শক্তিশালী ও পাওয়ার-সেভিং হেডল্যাম্প।
  • নতুন ডিজিটাল ওডো, যাতে রয়েছে নেগেটিভ-ডিসপ্লে এবং চমৎকার স্টেইন-ক্রোম-বেজেল ফিনিশ।
  • স্কুটারটির ব্লিঙ্কারগুলি বডি-মাউন্টেড ও খুব সহজেই আশেপাশের যানবাহনের কাছে দৃশ্যমান।
  • পেছনের ব্লিঙ্কারগুলি ডুয়্যালটোন, যার একসারি একেরপর এক জ্বলে-নেভে ফলে সহজেই স্কুটারের অবস্থান সবার কাছে দৃশ্যমান হয়।
  • প্রিমিয়াম ফিনিশ সুইচগুলোতে দেয়া হয়েছে ফেদার-টাচ এক্টিভিটি। আর ককপিটটিও অত্যন্ত সুন্দর।
  • এতে রিভার্স-গিয়ার রয়েছে। ফলে ছোট জায়গায় ঘোরানো বা পার্কিংয়ে বাড়তি সুবিধা পাওয়া যায়।
  • স্মার্ট গ্লোভ-কম্পার্টমেন্টে বিল্ট-ইন ইউএসবি গ্যাজেট চার্জ করার সুবিধা রয়েছে।
  • ব্যবহার্য জিনিষপত্র রাখার জন্যে সুপরিসর আন্ডার-সিট কম্পার্টমেন্ট রয়েছে।
  • পাওয়ারফুল মোটর ও ব্যাটারী সহ এতে রয়েছে তিনটি আলাদা রাইডিং মোড।
  • সম্পূর্ণ এক চার্জে স্কুটারটি প্রায় ৯৫কিমি পর্যন্ত চলতে পারে।
  • এতে রয়েছে আধুনিক হুইল, ব্রেক, ও সাসপেনশন সিস্টেম।
  • আধুনিক মোবাইলফোন কানেকটিভিটি ইনফর্মেশন শেয়ারিং, স্কুটার পজিশন লোকেটিং, ও সিকিউরিটি নিশ্চিত করে।
  • আরামদায়ক সিট, গ্র্যাবরেইল, এবং নিরাপদ ফুটরেষ্ট পজিশন আরামদায়ক রাইডিং নিশ্চিত করে।
  • এতে রয়েছে ৫০,০০০কিমি রাইডিংয়ে ব্যাটারী ওয়ারেন্টি।

About Saleh Md. Hassan

আমি কোন বাতিকগ্রস্ত পথের খেয়ালী ধরনের নই…. তবে মোটরসাইকেল পছন্দ করি ও প্রয়োজনে ব্যবহার করি মাত্র…. কিছুটা ঘরকুনো বাধ্যগত চালক…. তবে মাঝে মাঝে নিজের ভেতরের যোগী-ভবঘুরে স্বত্তাকে মুক্তি দেই আমার দুইচাকার ঘোড়ার উপর চেপে বসে বিস্তৃত অদেখার পথে ছুটে যাবার জন্য…..অনেকটা বাঁধনহীন চির ভবঘুরের মতো…..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*