বাইক র‍্যালি করার ক্ষেত্রে যে ৯ টি সাবধানতা অবলম্বন করবেন

বাইক র‍্যালি আমাদের দেশে অনেক বেশি জনপ্রিয়, আমাদের দেশে বিভিন্ন সরকারি ছুটির দিনে অথবা বিশেষ কোন দিবসে বাইকাররা বাইক র‍্যালি করে থাকে। সবাই মিলে এক জায়গায় মিলিত হয়ে সেখান থেকে সর্ট কোন রাইড এর মাধ্যমে গ্রুপ র‍্যালি শেষ হয়ে থাকে। কিন্তু আমাদের নিজেদের ছোট ছোট কিছু ভুলের কারনে অনেক সময় র‍্যালিতে কিছু দূর্ঘটনা ঘটে থাকে। কিন্তু বাইক র‍্যালি করার ক্ষেত্রে যদি ছোট ছোট কিছু বিষয় মেনে চলা যায় তাহলে র‍্যালি অনেক আনন্দদায়ক হতে পারে।

বাইক র‍্যালি

Photo Credit: js films

বাইক র‍্যালি করার ক্ষেত্রে যেসব সাবধানতা অবলম্বন করবেনঃ

১- সবাই হেলমেট ব্যবহার করাঃ

বর্তমানে বাইকিং গ্রুপগুলো নিজেদের সেফটি নিয়ে অনেক সচেতন, হেলমেট ছাড়া অধিকাংশ বাইকিং গ্রুপের র‍্যালিতে আপনি যোগ দিতে পারবেন না। কিন্তু অনেক সময় দেখা যায় আপনার পিলিয়ন আপনার অজান্তে হেলমেট খুলে হাতে ধরে বসে থাকে। কিন্তু এই কাজটি করা কখনো উচিৎ না, কারন হেলমেট আপনাকে বড় বড় বিপদের হাত থেকে রক্ষা করে।

হর্ণ

২- হাসপাতালের সামনে অতিরিক্ত হর্ণ ব্যবহার না করাঃ

আমরা যখন বাইক র‍্যালি নিয়ে বের হয় তখন অনেকেই মজা করার জন্য কয়েকজন মিলে বাইকের হর্ণ দীর্ঘ সময়ের জন্য দিয়ে থাকি। কিন্তু অতিরিক্ত হর্ণ ব্যবহার করাটা উচিৎ না, বিশেষ করে আপনি যখন কোন হাসপাতালের সামনে দিয়ে আপনার বাইক র‍্যালি নিয়ে অতিক্রম করবেন এইদিকে বিশেষভাবে খেয়াল রাখুন। আমাদের আনন্দ যেনো অন্য কারো কষ্টের কারন না হয়ে যায়।

নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখা

৩- নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখাঃ

বাইক র‍্যালিতে যারা অংশ নিবে তারা সবাই এক মাপের রাইডার না, সবার রাইডিং এর ধরণ ও এক রকম না। তাই যখন র‍্যালিতে যাবেন তখন আপনার বাইক অন্য বাইক থেকে কিছুটা নিরাপদ দূরত্বে রাখুন। এতে করে আপনি যেমন নিরাপদ থাকবেন ঠিক তেমনি আপনার দেখাদেখি অন্য কোন বাইকারও হয়তো এই নিয়ম মেনে চলবে।

অতিরিক্ত গতি

৪- অতিরিক্ত গতি পরিহার করাঃ

গ্রুপ রাইড হউক অথবা বাইক র‍্যালি কখনো অতিরিক্ত গতি ভালো না। আপনি যখন বাইক নিয়ে কোন র‍্যালিতে বের হবেন তখন এই বিষয়টির দিকে বিশেষভাবে খেয়াল রাখুন। কেউ যদি আপনার পাশ দিয়ে অতিরিক্ত গতিতে অভারটেক করে তাহলে তাকে তার মতোন যেতে দিন।

৫- রাস্তা ব্লক না করাঃ

বাইক র‍্যালি করার সময় আমরা নিজেদের অজান্তে অনেক সময় রাস্তা ব্লক করে ফেলি, কিন্তু এই কাজটি আমাদের করা উচিৎ না। আমাদের আনন্দ যেনো রাস্তায় চলাচলকারী অন্য মানুষের বিরক্তির কারন না হয়ে যায় সেদিকে একটু খেয়াল রাখি। আশেপাশে এ্যাম্বুলেন্স থাকলে তাকে আগে বের হয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করে দেয়। আমরা বাইকাররা চাইলেই ভালো অনেক কিছু করতে পারি।

লেন পরিবর্তনে সংকেত

৬- লেন পরিবর্তনে সংকেত ব্যবহার করাঃ

গ্রুপ র‍্যালিতে যেহেতু অনেক বাইকার থাকেন তাই প্রতিটি বাইকারের উচিৎ লেন পরিবর্তনের আগে পেছের বাইকারকে সংকেত দেয়া। এতে করে আপনি এবং আপনার সাথের বাইকারদের বিপদে পরার সম্ভাবনা কম থাকে। গ্রুপ র‍্যালিতে সব সময় একটা জিনিস মনে রাখবেন আপনার ছোট্ট একটু ভুল অন্য বাইকারদের বিপদে ফেলে দিতে পারে।

আরও পড়ুন >> সকল বাইকের বর্তমান মূল্য

৭- হুট করে ব্রেক না করাঃ

যখন বিশেষ কোন প্রয়োজনে ব্রেক করার দরকার হবে তখন আপনার পেছনের বাইকারকে সচেতন করুন, যাতে সেও আপনার সাথে ব্রেক করতে পারে। অনেক সময় ছোট এই ভুলের জন্য অনেক বড় দূর্ঘটনা ঘটে যায়।

৮- ঠাণ্ডা মাথায় বাইক রাইড করাঃ

সিটি রাইড হউক অথবা লং রাইড কিংবা বাইক র‍্যালি সবাই ঠাণ্ডা মাথায় বাইক রাইড করার চেষ্টা করুন। কারন গরম মাথায় তাড়াহুড়া করে বাইক রাইড করা বাইক দূর্ঘটনার অনেক বড় একটা কারন। নিজে নিরাপদ থাকুন আর আপনার আশেপাশের মানুষকে নিরাপদ রাখুন।

লেন পরিবর্তনে সংকেত

৯- একটি বাইকে দুইজনের অধিক নয়ঃ

ঢাকার বাইরে যেসব বাইক র‍্যালি হয় অনেক র‍্যালিতে দেখা যায় এক বাইকে ৩ জন করে বসে, এটা আসলে উচিৎ না। কোন কারনে যদি আপনার বাইকটি দূর্ঘটনার সম্মুখীন হয় তাহলে আপনাদের ৩ জনের জীবন ঝুঁকির মধ্যে পরতে পারে। আর তাছাড়া বাইক কিন্তু ৩ জন নিয়ে চালানোর জিনিস না।

আপনাদের বাইক র‍্যালি নিরাপদ হউক এই কামনা করি। সব সময় নিয়ন্ত্রিত গতিতে বাইক রাইড করুন নিজে ভালো থাকুন আর ভালো রাখুন।

ধন্যবাদ।

 

 

About Ashik Mahmud

ashik.bikebd@gmail.com'

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*