বাজাজ প্লাটিনা ১১০ এইচ-গিয়ার ফিচার রিভিউ

বাজাজ অটো এই জুন ২০১৯ এ তাদের প্লাটিনা সিরিজের সর্বশেষ মডেলটি বাজারে ছেড়েছে। মডেলটি নতুন কিছু ফিচারসহ বাজাজ প্লাটিনা ১১০ এইচ-গিয়ার নামে বাজারে এসেছে। মোটরসাইকেলটির ফিচার ডিটেইল নিয়ে আমাদের আজকের আয়োজন বাজাজ প্লাটিনা ১১০ এইচ-গিয়ার ফিচার রিভিউ। চলুন তবে মোটরসাইকেলটির বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক।

বাজাজ প্লাটিনা ১১০ এইচ-গিয়ার ফিচার রিভিউ

নতুন বাজাজ প্লাটিনা ১১০ এইচ-গিয়ার

বাজাজ প্লাটিনা সিরিজটি একটি অ্যাবস্যালিউট কমিউটার সিরিজ। আর প্লাটিনা এইচ-গিয়ার তাতে সর্বশেষ নতুন সংযোজন। বাজাজ প্লাটিনা সিরিজটি মূলত: প্রতিযোগীতামূলক কমিউটিং ফিচারগুলো সমন্বয় করে। তেমনি নতুন এইচ-গিয়ার সেই কোর-ট্রেন্ডের বাইরে কিছু নয়। বরং কিছু বাড়তি কমিউটিং ফিচার তাতে সংযোজিত হয়েছে।

ডিজাইন ও লুকের ক্ষেত্রে নতুন এইচ-গিয়ার প্লাটিনা সিরিজের আইকনিক ডিজাইনই ফলো করেছে। সেইসূত্রে এটি একই ধরনের হেডল্যাম্প, টেইলল্যাম্প, ফুয়েলট্যাঙ্ক, সিট ও সাইডপ্যানেল নিয়ে এসেছে। তবে এসব আইকনিক ডিজাইনের সাথে সমন্বয় রেখে এর এক্সটেরিয়রে কিছু আপডেট আনা হয়েছে।

বাজাজ প্লাটিনা ১১০ এইচ-গিয়ার ফিচার রিভিউ

মোটরসাইকেলটির হেডলাইটটি আগের মতো থাকলেও এর উপরে এলইডি-ডিআরএল দেয়া হয়েছে। এতে সম্পূর্ণ নতুন একটি অডো-কন্সোল সংযোজিত হয়েছে। এটি এখন এ্যানালগ-ডিজিটালের একটি কম্বো ইউনিট। এতে অন্যান্য রেগুলার গ্যাজেট এর সাথে সাথে বাড়তি কিছু প্যারামিটার যেমন এইচ-গিয়ার ফিচার দেয়া হয়েছে।

এছাড়াও এই মোটরসাইকেলটিতে নতুন একটি সিট দেয়া হয়েছে। এটি সেলাই দেয়া একাধিক কুশনযুক্ত, পরিসরে আরো বেশি লম্বা ও চওড়া করা হয়েছে। আর এসব ছাড়াও বাইকটির ব্রেক ও সাসপেনশন সিস্টেমেও বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে।

মোটরসাইকেলটিতে নতুন সব ফিচারের সাথে সাথে এতে আলাদা কালার ও শেডের সমন্বয় ঘটানো হয়েছে। আর এর ইঞ্জিনেও দেয়া হয়েছে চমৎকার কালো ম্যাট-ফিনিশ। তো সবমিলিয়ে বাজাজ প্লাটিনা ১১০ এইচ-গিয়ার একটি নতুন লুক, ডিজাইন, আর আলাদা এক আইডেনটিটি নিয়ে এসেছে।

ফ্রেম, হুইল, ব্রেক, ও সাসপেনশন সিষ্টেম

নতুন বাজাজ প্লাটিনা ১১০ এইচ-গিয়ার এ রয়েছে অন্যান্য প্লাটিনার মতোই টিউবুলার সেমি-ডাবল-ক্রেডল ফ্রেম। তবে মডেল ও ফিচারভেদে এর ডাইমেনশন কিছুটা আলাদা হতে পারে। যাহোক, এর দুই চাকাতেই রয়েছে জোড়াকৃত ১০-স্পোক এ্যালয়-রিম আর 80/100-17 মাপের টিউবলেস টায়ার।

বাইকটির সামনে রয়েছে টেলিস্কোপিক-ফর্ক সাসপেনশন আর পেছনে ডাবল সাসপেনশন। এর পেছনের সাসপেনশনদুটো নাইট্রক্স গ্যাস-ক্যানিস্টার ও এসওএস (স্প্রিং-ওভার-স্প্রিং) ফিচারযুক্ত। আর সামনের সাসপেনশন ১৩৫মিমি ও পেছনের সাসপেনশনগুলো ১১০মিমি ট্রাভেলযুক্ত।

ব্রেকিংয়ের ক্ষেত্রে প্লাটিনা এইচ-গিয়ার এর সামনে রয়েছে ২৪০মিমি হাইড্রলিক ডিস্ক ব্রেক। আর এর পেছনের ব্রেকটি ১১০মিমি ড্রাম-টাইপ ব্রেক। আর বাড়তি হিসেবে এতে রয়েছে লিঙ্কড এ্যান্টি-স্কিড ব্রেকিং সিষ্টেম। তো সবমিলিয়ে এইচ-গিয়ার ফ্রেম, হুইল, ব্রেক, ও সাসপেনশন সিষ্টেমে বেশ চমৎকার কিছু ফিচার নিয়ে এসেছে।

বাজাজ প্লাটিনা ১১০ এইচ-গিয়ার ফিচার রিভিউ

রাইডিং ও হ্যান্ডেলিং ফিচার

নতুন বাজাজ প্লাটিনা ১১০ এইচ-গিয়ার নতুন কিছু ফিচারযুক্ত নতুন একটি কমিউটার। এতে বেশ প্রতিযোগীতামুলক কিছু কমিউটিং ফিচারের সমন্বয় করা হয়েছে। ফলে এর রাইডিং ও হ্যান্ডেলিং আগের মতোই আরামদায়ক ও সহজ। সেইসাথে এতে রয়েছে নতুন এইচ-গিয়ার গাইডেন্স সিস্টেম।

নতুন এই কমিউটারে রয়েছে ইউনিক জিএসজি তথা গিয়ার-শিফট-গাইড ফিচার। জিএসজি ফিচারটি ওডো ডিসপ্লের মাধ্যমে চালককে পারফেক্ট গিয়ার শিফটিংয়ের ইন্সট্রাকশন দেয়। আর এর এইচ-গিয়ার সিস্টেম চালককে দেয় স্মুথ হাইওয়ে রাইডের অভিজ্ঞতা। আর সঠিক গিয়ার শিফটিংয়ের মাধ্যমে এটি আরামদায়ক রাইড ও ম্যাক্সিমাম ফুয়েল ইকোনমি নিশ্চিত করে।

অন্যদিকে বাজাজের মতে এটি তাদের তৈরীকৃত অন্যতম একটি আরামদায়ক প্লাটিনা। বাইকটির রাইডিং এ্যারেন্জমেন্ট ও সেটআপ সম্পূর্ণ আপরাইট। আর এর সিটও নতুনভাবে সমন্বয় করা।  এটি আগের চেয়ে আরো সুপরিসর ও আরামদায়ক। এটি চালক ও যাত্রীকে নিশ্চিতভাবেই অত্যন্ত আরামে বসার অভিজ্ঞতা দেবে।

আর নতুন প্লাটিনা এইচ-গিয়ারের সাসপেনশনগুলোও বেশ আরামদায়ক বৈশিষ্ট্যের। এগুলি বেশ সংবেদনশীল আর লং-ট্রাভেল ফিচারযুক্ত। আর সেইসাথে এতে ডিষ্ক-ব্রেক ও লিঙ্কড এ্যান্টি-স্কিড-ব্রেকিং ফিচার থাকায় এর কন্ট্রোল আরো উন্নত হয়েছে। সবমিলিয়ে এই ১১৮.৫কেজি ওজনের এই বাইকটি সহজেই রাইড, হ্যান্ডেল ও কন্ট্রোল করা সম্ভব।

বাজাজ প্লাটিনা ১১০ এইচ-গিয়ার ইঞ্জিন ফিচার

নতুন এইচ-গিয়ারে মূলত: বাজাজের প্লাটিনা ১১০ কর্ম্ফোটেক ইঞ্জিনটিই ব্যবহার করা হয়েছে। তবে এর গিয়ারে বেশ বড় ধরনের পরিবর্তন আনা হয়েছে। এটি একটি সিঙ্গেল-সিলিন্ডার, ফোরস্ট্রোক, এয়ারকুলড, ২-ভালভ ইঞ্জিন। এতে রয়েছে বাজাজের DTS-I ও ExhausTEC ফিচার।

ফুয়েল-এ্যাফিশিয়েন্ট এই ইঞ্জিনটি মোটামুটি ৮.৬পিএস পাওয়ার ও ৯.৮১এনএম টর্ক উৎপাদন করতে পারে। আর এই ইঞ্জিনটি নতুন ৫-স্পিড গিয়ার ট্রান্সমিশনযুক্ত। ফলে এটি দিয়ে স্মুথলি হাইওয়েতে রাইড করা যেতে পারে।

বাজাজ প্লাটিনা ১১০ এইচ-গিয়ার এর ইঞ্জিনটি একটু নতুনভাবে এ্যাফিশিয়েন্টলি টিউন করেছে। এটি (According to ARAI FE) মোটামুটি  ৮৪কিমি/লিটার ফুয়েল-ইকোনমি দিতে পারে। আর বাজাজের নিজস্ব টেষ্টিং মতে এটি প্রায় ৯০কিমি/ঘন্টা সর্বোচ্চ গতি তুলতে পারে। তো সবমিলিয়ে এইচ-গিয়ারের ইঞ্জিনটিতে ইকোনমি ও পারফর্মেন্সের এক চমৎকার সমন্বয় ঘটানো হয়েছে বলা যায়।

Bajaj Platina 110 H-Gear – Specification

SpecificationBajaj Platina 110 H-Gear
EngineSingle Cylinder, Four Stroke,

Air Cooled, 2 Valve, DTS-I Engine with ExhausTEC

Displacement115cc
Bore x Stroke50.0mm x 58.8mm
Compression RatioNot Found
Maximum Power8.6PS (6.3kW) @7,000RPM
Maximum Torque[email protected],000RPM
Fuel SupplyCarburetor, PTE 16 Manual Choke
IgnitionCDI
Starting MethodKick & Electric Start
Clutch TypeWet, Multiple-disc
LubricationWet Sump
Transmission5-Speed

Dimension

Frame TypeTubular, Semi-Double Cradle Frame
Dimension (LxWxH)2,006mm x704mm x 1,076mm
Wheelbase1,255mm
Ground Clearance200mm
Saddle Height807mm
Weight (Kerb)118.5kg
Fuel Capacity11 Liters
Fuel Economy84kmpl (According to ARAI FE)
Top Speed90 km/h (Internally Tested)

Wheel, Brake & Suspension

The suspension (Front/Rear)Hydraulic Telescopic Fork, 135mm Travel

SOS, Hydraulic Shock Absorbers, with Nitrox gas canister x 2,

110 mm Travel

Brake system (Front/Rear)240mm Disk

/ 110mm Drum

Tire size (Front / Rear)Front: 80/100-17 (Tubeless)

Rear: 80/100-17 (Tubeless)

Battery12V
Headlamp12V 35/35W, HS 1 Blue Tinge Bulb

(LED DRL)

SpeedometerAnalog Digital Combo Meter

*All the specifications are subject to change upon company rules, policy, offer & promotion. BikeBD is not liable for the changes.

About Saleh Md. Hassan

আমি কোন বাতিকগ্রস্ত পথের খেয়ালী ধরনের নই…. তবে মোটরসাইকেল পছন্দ করি ও প্রয়োজনে ব্যবহার করি মাত্র…. কিছুটা ঘরকুনো বাধ্যগত চালক…. তবে মাঝে মাঝে নিজের ভেতরের যোগী-ভবঘুরে স্বত্তাকে মুক্তি দেই আমার দুইচাকার ঘোড়ার উপর চেপে বসে বিস্তৃত অদেখার পথে ছুটে যাবার জন্য…..অনেকটা বাঁধনহীন চির ভবঘুরের মতো…..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*