ট্র্যাফিক কেস স্লিপ হারিয়ে গেলে করনীয় কি? জানুন বিস্তারিত

আমরা সবাই জানি ঢাকা সিটিতে বাইক নিয়ে মামলা হলে আপনার বাইকের একটি বা দুটি কাগজ আটকে রেখে আপনার কাছে একটি কেস স্লিপ দিয়ে দেয়া হয়। তারপর ইউক্যাশ এর মাধ্যমে টাকা জমা দিলে আপনার বাইকের আটকে রাখা কাগজ আপনাকে ফেরত দেয়া হয়। অনেক সময় আমাদের কাছ থেকে এই কেস স্লিপ হারিয়ে যায়। আমরা অনেকেই জানি না কেস স্লিপ হারিয়ে গেলে কিভাবে কি করতে হয়। আজ আমরা এই সর্ম্পকে জানবো।

[ 3 ]
[ 2 ]

ট্র্যাফিক কেস স্লিপ হারিয়ে গেলে করনীয় কি জানুন বিস্তারিত

কেস স্লিপ হারিয়ে গেলে করনীয়:

কেস স্লিপ হারিয়ে গেলে আপনাকে কিছুটা কষ্ট করতে হবে বাইকের কাগজ ফেরত পেতে। তাই কেস স্লিপ সব সময় সাবধানে রাখুন।

[ 1 ]

জিডি (সাধারন ডায়েরী) করাঃ

সবার প্রথমে আপনাকে থানায় যেতে হবে এবং জিডি করতে হবে। নিকটস্থ থানায় গিয়ে গাড়ীর নাম্বার উল্লেখপূর্বক কেস স্লিপ হারানোর বর্ননা দিয়ে জিডি (সাধারন ডায়েরী) করবেন।
অনেকের কাছে মনে হতে পারে এটা খুব ঝামেলার কাজ, কিন্তু এমনটা আসলে না। আপনি থানায় গেলে পুলিশের কাছ থেকে সহায়তা পাবেন। এই ক্ষেত্রে কখনো অন্যের কাছ থেকে জানা কথাকে প্রাধান্য দিবেন না।

জিডি (সাধারন ডায়েরী)

জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি সাথে রাখাঃ

এই কাজগুলো করতে গেলে অবশ্যই জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি নিবেন। কারন এটি আপনার ভেরিফিকেশনের জন্য কাজে লাগবে। যদি সম্ভব হয় নিজের অরজিনাল জাতীয় পরিচয়পত্র টি সাথে রাখুন।

সংশ্লিষ্ট ট্রাফিক অফিসে যাওয়াঃ

সংশ্লিষ্ট ট্রাফিক অফিসে জিডি কপি ও পরিচয়পত্রের কপি দিয়ে জানিয়ে দিন আপনার স্লিপ হারিয়ে গেছে। তবে তার আগে জানতে হবে আপনার বাইকের কাগজ কোন জোনের ট্রাফিক অফিসে আছে।

Also Read: বাইকের মামলা হওয়ার পর কিভাবে কাগজ ফেরত পাবো?

তথ্য যাচাইঃ

ট্রাফিক অফিস আপনার গাড়ীর মামলার তথ্য যাচাই করবে।

জরিমানার পরিমান জানিয়ে দেয়াঃ

তথ্য যাচাই শেষ হয়ে গেলে ট্রাফিক অফিস মামলার আইডি ও জরিমানার পরিমান আপনাকে জানিয়ে দেবে। আপনার যদি এটা নিয়ে অন্য কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে সেখান থেকে আপনি জেনে নিতে পারবেন।

জরিমানা পরিশোধঃ

আপনি ইউক্যাশে জরিমানা পরিশোধ করে আসলে জিডি ও পরিচয়পত্রের কপি জমা দিয়ে আপনার ডকুমেন্টটি পেয়ে যাবেন।

বাইক চালানোর সময় সচেতনা

স্লিপ হারিয়ে গেলে আপনি কাগজ ফেরত পাবেন, কিন্তু যদি ঝামেলা এড়িয়ে চলতে চান সব সময় নিজের বাইকের ডকুমেন্ট নিয়ে সচেতন থাকুন। যত্র দ্রুত সম্ভব মামলার টাকা জমা দিয়ে বাইকের কাগজ পত্র বুঝে নিন। সবচেয়ে ভালো হয় মামলা হওয়া মাত্র ইউক্যাশে টাকা জমা দিয়ে কাগজ নিয়ে নিতে পারলে। নিরাপদ হউক আপনার পথচলা। ট্রাফিক আইন মেনে বাইক রাইড করুন।

তথ্যসূত্রঃ সার্জেন্ট/মোহাম্মদ দীনার
কোর্ট-প্রসিকিউশন(ট্রাফিক বিভাগ)
সিএমএম কোর্ট, ঢাকা।

About Ashik Mahmud

ashik.bikebd@gmail.com'

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*