টিউবড টাইপ টায়ার এর বৈশিষ্ট্য ও সুবিধা

সাধারনভাবে টিউবড টাইপ টায়ার হলো মোটরগাড়ির জন্যে সচরাচর ও বহুলপ্রচলিত ধরনের টায়ার। মোটরসাইকেলেও এধরনের টায়ার বেশ ব্যাপকভাবেই প্রচলিত। এমনকি আধুনিক মোটরসাইকেলগুলোতেও বিভিন্ন ক্যাটাগরির টিউবড টায়ারের ব্যবহার দেখা যায়। আর অবশ্যই সাধারন ও ভিন্নমাত্রার ফিচারের কারনেই এর এতো সমাদর। তো সেইসূত্রেই আমাদের আজকের আলোচনা, টিউবড টাইপ টায়ার এর বৈশিষ্ট্য ও সুবিধা। তবে চলুন আমাদের আজকের আলোচনায়।

টিউবড টায়ার এর বৈশিষ্ট্য ও সুবিধা

টিউবড টাইপ টায়ার এর বৈশিষ্ট্য ও সুবিধা

দুচাকার বাহনের জন্য টিউবড টায়ার অত্যন্ত জনপ্রিয় ও সহজ এক সমাধান। এমনকি আধুনিক মোটরসাইকেল ম্যানুফ্যাকচারাররাও এধরনের টায়ার তাদের বাহনে ব্যবহার করে থাকেন। পক্ষান্তরে সহজ ও সাধারন ফিচারের সাথে সাথে বিশেষ কিছু ফিচারের কারনে এই টায়ার মোটরসাইকেলে ব্যপকভাবে ব্যবহৃত হয়। তো চলুন সেই সাধারন ও বিশেষ ফিচারগুলো দেখে নেয়া যাক।

ইকোনমিক ফিচার এন্ড প্রাইস

টিউবড টায়ারের সবচেয়ে সাধারন ও অনন্য বৈশিষ্ট্য হলো এর সহনীয় মূল্য। এটার উৎপাদন যেমন কম ঝামেলাপূর্ণ তেমনই উৎপাদন খরচও তুলনামূলকভাবে বেশ কম। ফলে বেশ সহনীয় মূল্যেই এর বিশেষ ফিচারের টায়ারগুলোও বাজারে পাওয়া যায়। এতে সবমিলিয়ে উৎপাদকের খরচও কম হয় এবং গ্রাহকেরও পরবরর্তী খরচের চাপ কমে যায়।

রিপেয়ার ও মেইনটেন্যান্স

টিউবড টায়ারের রিপেয়ার ও মেইনটেন্যান্স অনেকটাই সহজ একটি বিষয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায়, ভেতরের টিউব রিপেয়ার করে বা বদলে ফেলেই অনেক সমস্যার সমাধান করা যায়। আর কিছু এক্সিডেন্টাল কেসেও টায়ার রিপেয়ার করে সাময়িক কাজ চালিয়ে নেয়া যায়। তবে এধরনের সহজ রিপেয়ার অন্য ধরনের টায়ারে সম্ভব নয়। আর কমমূল্যের কারনে টিউবড টায়ারের রিপ্লেসমেন্ট কস্টও বেশ কম।

টিউবড টাইপ টায়ার – সেফটি ইস্যু

সহজ রিপেয়ার ও মেইনটেন্যান্স ইস্যু বিচারে টিউবড টায়ার অনেকটাই নিরাপদ। চলার পথেই এটা সহজেই সারিয়ে নেয়া যেতে পারে। আর সচরাচর এই টায়ার হাই-স্পিড বাইকে ব্যবহার করা হয়না। তাই উচ্চগতিতে থাকা অবস্থায় এটা বসে যাবার বিষয়টিও ধর্তব্যে আসেনা। আর খুব জরূরী অবস্থাতেও এই টায়ার রিপেয়ার করে কাজ চালিয়ে নেয়া যায়। বাড়তি হিসেবে, সামান্য বাতাসের চাপ থাকলেও এটি সার্ভিস দিতে পারে।

ইজি কন্ট্রোলিং ও হ্যান্ডেলিং প্রফাইল

সাধারনত, সব টিউবড টায়ারেই কমন কিছু কন্ট্রোলিং ও হ্যান্ডেলিং ফিচার থাকে। যা অন্যধরনের টায়ারে কমই দেখা যায়। আর সেকারনেই এর প্রফাইল মোটামুটি অনেক ধরনের সারফেসে চলার উপযোগী হয়ে থাকে। তো সেকারনেই ড্যুয়াল-স্পোর্টস, অফরোড, অথবা ডার্ট-বাইকে কমিউটার বাইকের মতোই টিউবড টায়ার ব্যাবহার করা হয়ে থাকে।

বিভিন্ন থ্রেড প্যাটার্ন

টিউবড টায়ারেই মূলত: সর্বাধিক ধরনের থ্রেড প্যাটার্ণ দেখা যায় যা অন্যান্য ধরনের টায়ারে দেখা যায় না। কেননা এই টায়ারেই এসব ফিচার সহজে ও তুলনামূলক কমখরচে সম্ভব। এখানে টায়ারের ভিতরের টিউবটি একটি স্বাতন্ত্র লেয়ার হিসেবে কাজ করে ও বাতাস ধারনের কাজটি করে থাকে। ফলে টায়ারটি আরেকটি আলাদা লেয়ার হিসেবে এতে যেকোন ধরনের থ্রেড কম খরচে ও সহজেই তৈরি করা যায়।

টিউবড টায়ার এর বৈশিষ্ট্য ও সুবিধা

ম্যাক্সিমাম শক এ্যাবজরপশন

টিউবড টায়ারই মূলত: অনেকটাই বেশি শক-এ্যাবজরবিং বৈশিষ্ট্যের হয়ে থাকে। এর ইনার টিউব এককভাবেই বাতাস ধরে রাখে আর এটি স্বাতন্ত্র একটি লেয়ার হিসেবেও কাজ করে। ফলে মূল টায়ার কিছুটা পাতলা আর সফট কম্পাউন্ড হবার সুবিধাটুকু পায়।

একারনেই টিউবড টায়ারগুলি বেশ ফ্লেক্সিবল হয়ে থাকে। সেইসাথে এতে বাড়তি সুবিধা হলো এটি খুব কম বাতাসের চাপ নিয়েও চলতে পারে। আর এসবকারনেই টিউবড টায়ারে শক-এবজরবিং ফ্যাসিলিটি অনেক বেশি। ফলত: কমিউটার মোটরসাইকেলের সাথে সাথে বেশিরভাগ ড্যুয়াল-টেরেইন, অফরোড, ও ডার্ট-বাইকে এই টায়ার ব্যাবহার করা হয়ে থাকে।

এ্যাডভান্সড ব্রেকিং ক্যাপাবিলিটি

এটি টিউবড টাইপ টায়ার এর অন্যতম একটি প্রধান বৈশিষ্ট্য। এই ধরনের টায়ারগুলিতে এমনিতেই তুলনামূলকভাবে বেশি গ্রিপ পাওয়া যায়। অন্যান্য ধরনের টায়ারে যেমন ভালো গ্রিপের জন্যে আলাদা নজর দিতে হয় এতে তা দিতে হয়না বললেই চলে।

আর বিভিন্ন টায়ার-থ্রেড, পাতলা ও সফট-কম্পাউন্ড লেয়ার, এবং অল্প বাতাসের চাপে চলার ক্ষমতা নিয়ে এর গ্রিপ স্বভাবতই বেশি। ফলে টিউবড টাইপ টায়ার দেয় প্রিমিয়াম ব্রেকিং ক্যাপাবিলিটি।

টিউবড টায়ার এর বৈশিষ্ট্য ও সুবিধা

টিউবড টায়ার লাইফটাইম ও ডিউরাবিলিটি

টিউবড টায়ারগুলো তুলনামূলকভাবে অনেকটাই বেশি ডিউরাবল। সার্বিক বিচারে এগুলির লাইফটাইম অন্যান্য ধরনের টায়ার হতে অনেকটাই বেশি। এই ধরনের টায়ারগুলি টিউব বদল করে অনেকদিন পর্যন্ত ব্যবহার করা যায়। আর টায়ারগুলোও সাধারন রিপেয়ার নিয়েও ভালোই সার্ভিস দিতে পারে।

ফলত:এসব কারনেই টিউবড টাইপ টায়ার মোটরসাইকেলের জন্যে বেশ কস্ট-ইফেকটিভ ও ইকনোমিক সল্যুশন। তাই এখনও আধুনিক মোটরসাইকেল গুলোতেও এই টায়ার ব্যপকভাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। তো বন্ধুরা, এই ছিলো টিউবড টায়ার নিয়ে আমাদের আজকের আলোচনা। ধন্যবাদ।

About Saleh Md. Hassan

আমি কোন বাতিকগ্রস্ত পথের খেয়ালী ধরনের নই…. তবে মোটরসাইকেল পছন্দ করি ও প্রয়োজনে ব্যবহার করি মাত্র…. কিছুটা ঘরকুনো বাধ্যগত চালক…. তবে মাঝে মাঝে নিজের ভেতরের যোগী-ভবঘুরে স্বত্তাকে মুক্তি দেই আমার দুইচাকার ঘোড়ার উপর চেপে বসে বিস্তৃত অদেখার পথে ছুটে যাবার জন্য…..অনেকটা বাঁধনহীন চির ভবঘুরের মতো…..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*