গিয়ার এক্স বাংলাদেশ থেকে হেলমেট কিনলেই ৬০,০০০ টাকার হেলথ ইন্সুরেন্স ফ্রি

গিয়ার এক্স বাংলাদেশ ২০১৮ সালে বাংলাদেশে তাদের যাত্রা শুরু করে। বর্তমানে গিয়ার এক্স বাংলাদেশ KYT, BILMOLA এবং SUOMY হেলমেটের বাংলাদেশের একমাত্র অফিসিয়াল ডিস্ট্রিবিউটর। গ্রাহকদের বিশ্বমানের সার্ভিস দেওয়ার জন্য বাংলাদেশে প্রথম হেলমেটে অফিসিয়াল ওয়ারেন্টি এবং ক্রেডিট কার্ডে কিস্তিতে হেলমেট কেনার সুবিধাও গিয়ার এক্স বাংলাদেশ শুরু করে।

bilmola nex

আমাদের দেশে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা খুব কমন। এই ক্ষেত্রে বাইকারদের দুর্ঘটনায় তাদেরকে সাহায্য করার জন্য গিয়ার এক্স বাংলাদেশ তাদের সকল সম্মানিত গ্রাহকদের জন্য দিচ্ছে ফ্রি ৬০,০০০ টাকা পর্যন্ত ইন্সুরেন্স সুবিধা ১ বছরের জন্য। এই সুবিধা ১ জানুয়ারী, ২০২০ থেকে গিয়ার এক্স বাংলাদেশের ফ্ল্যাগশিপ শোরুম অথবা যেকোনো অথরাইজড ডিলার থেকে ক্রয় করা যেকোনো BILMOLA, KYT বা SUOMY হেলমেটের জন্য প্রযোজ্য।

এই ইন্সুরেন্সের আওতায় একজন বাইকারের সমস্ত অঙ্গ প্রত্যঙ্গ কাভার করা হয়েছে এবং ইন্সুরেন্স এর সুবিধা ক্লেইম করাও অনেক সহজ এবং সম্পুর্ন অনলাইনে করা যায়। সামান্য ক্ষতির জন্যেও একজন বাইকার মিনিমাম ৫,০০০/- ক্ষতিপূরণ পাবেন এবং ১ বছর পর্যন্ত যতবার দুর্ঘটনা ঘটবে ততবার পাবেন যার লিমিট ৫০,০০০ টাকা।

kyt in bangladesh

কিরকম দুর্ঘটনায় কিরকম ক্ষতিপূরণ পাবেন তা নীচের টেবিলে দেওয়া হলোঃ

দুর্ঘটনার ধরণবিস্তারিতকভারেজ এমাউন্ট
মাথায় আঘাতমাথায় আঘাত জনিত কারনে ব্রেইন ড্যামেজ ও মস্তিকের বিভিন্ন ক্ষতি হতে পারে।৫০,০০০/-
বুকে আঘাতএই আঘাতের মধ্যে রয়েছে বুকের হাড় ভেঙে যাওয়াসহ ভেতরে আঘাত পাওয়া।২৫,০০০/-
হাড় ভাঙা/কাটা চেড়া এ ধরনের আঘাত সাধারণত খুব বড় ধরনের দুর্ঘটনায় হয় না। সর্বোচ্চ হাড় ভাঙা সহ শরীরের কাটাচেড়া ও আঘাত প্রাপ্ত হতে পারে।১২,৫০০/-
হালকা আঘাতশরীরের কোন জায়গাতে হালকা আঘাত প্রাপ্ত হলে যেমন পেশীতে আঘাত, লিগামেন্ট ছিড়ে যাওয়া ইত্যাদি৫,০০০/-
দুর্ঘটনায় মৃত্যুযদি বাইকার মারা যায়১০,০০০/-

গিয়ার এক্স বাংলাদেশ – ডিস্ট্রিবিউটর অফ বিলমলা এন্ড কেওয়াইটি হেলমেটস

gearx bangladesh

ইন্সুরেন্স ক্লেইম করার নিয়মাবলিঃ

১) হেলমেট ক্রয় করার সাথে সাথেই https://bimabd.com/gearx-enrollment এই লিংকে রেজিস্ট্রেশন করে ফেলতে হবে এবং কোনো দুর্ঘটনা ঘটে গেলে অবশ্যই https://bimabd.com/gear-x-claim এই লিংকে ইন্সুরেন্স ক্লেইম করতে হবে।

২) কোনো দুর্ঘটনা হবার সাথে সাথেই নিকটস্থ হাসপাতালের এমার্জেন্সিতে চেকাপ করাতে হবে অথবা ভর্তি হতে হবে। যদি হাসপাতাল না থাকে তবে কোনো ক্লিনিক অথবা ডাক্তারের চেম্বারে চিকিৎসা নিতে হবে এবং সমস্ত রিসিপ্ট সাথে রাখতে হবে।

৩) দুর্ঘটনা হবার কারনে যদি চেকিং এর জন্য থানায় যেতে হয় তবে অবশ্যই সেখান থেকে ক্লিয়ারেন্স নিয়ে আসতে হবে।

৪) অবশ্যই হেলমেট পরে বাইক চালাতে হবে

৫) ট্রাফিক রুলস মেনে চলতে হবে

৬) এ্যালকোহল বা ড্রাগ সেবনের পরে রাইড করা যাবেনা

৭) অবশ্যই ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকতে হবে

suomy helmet in bangladesh

 

সব নিয়ম কানুন মেনে এপ্লাই করলে অবশ্যই ইন্সুরেন্স ক্লেইম করতে পারবেন। আরো তথ্যের জন্য যোগাযোগ করুন গিয়ার এক্স বাংলাদেশের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ https://www.facebook.com/gearxbangladesh/ অথবা মেইল করতে পারেনঃ shahriar.choudhury@gearxbd.com

About Arif Raihan opu

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*