করোনাভাইরাস- লকডাউনের পর বাইক নিয়ে বের হলে বিশেষ সাবধানতা

করোনাভাইরাস এর প্রকোপ থেকে রক্ষা পেতে দীর্ঘ দিন চললো আমাদের দেশে লকডাউন। এই সময় সরকার থেকে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছিলো। দেশের মানুষের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে কয়েক দফা এই ছুটি বাড়ানো হয়েছিলো। ৩০শে মে’র পর থেকে থেকে সাধারণ ছুটি আর বাড়ানো হবে না। তবে ৩১শে মে থেকে ১৫ই জুন পর্যন্ত সবাইকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে।

করোনাভাইরাস

যেহেতু সীমিত আকারে চলাচল করা যাবে তাই আমরা সবাই কম বেশি বাইক নিয়ে বাইরে বের হবো। কিন্তু লকডাউনের পর বাইক নিয়ে বের হলে আমাদের সবার বিশেষ সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। আগে আমরা যেই কাজগুলো করতাম অনেক কাজই এখন করা যাবে না। এই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচলা করা যাক।

করোনাভাইরাস- লকডাউনের পর বাইক নিয়ে বের হলে বিশেষ সাবধানতাঃ

mask

১- মাস্ক ব্যবহার করতে হবেঃ

আপনি আপনার প্রিয় বাইকটি নিয়ে যখনই বাইরে বের হবেন অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করবেন। বাইক চালানোর জন্য বাইকের সব ডকুমেন্টস যেমন সাথে রাখা জরুরী ঠিক তেমনি নিজের নিরাপত্তার জন্য মাস্ক ব্যবহার করাটা এখন খুব জরুরী।

hand gloves

২- হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহার করতে হবেঃ

আমরা অনেকেই আগে হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহার করতাম না, কিন্তু এখন বাইরে বের হলে অবশ্যই হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহার করতে হবে এবং এইগুলো সব সময় পরিষ্কার রাখতে হবে।

social distancing

৩- সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবেঃ

এতোদিন পর যেহেতু লকডাউন তুলে দেয়া হচ্ছে তাই আমরা সবাই চাইবো আমাদের বাইকার ভাইদের সাথে দেখা করতে এবং সবাই মিলে আড্ডা দিতে। কিন্তু একটা কথা আমাদের মাথায় রাখতে হবে এখনো সব কিছু ঠিক হয়ে যায় নি। তাই সামাজিক দূরত্ব আমাদের এখনো বজায় রাখতে হবে। অনেক মানুষ এক জায়গায় জড়ো হয় এমন কোন কাজ আপাতত আমাদের করা যাবে না।

আরও পড়ুন- করোনাভাইরাস কোথায় কতক্ষণ বেঁচে থাকে? নির্মূলের উপায়

washing hands

৪- সাবান পানি দিয়ে হাত পরিষ্কার করতে হবেঃ

বাইরে থেকে বাসায় গিয়ে অথবা কোন কিছু খাওয়ার আগে সাবান পানি দিয়ে আমাদের ভালোভাবে হাত ধুয়ে নিতে হবে। যদি সম্ভব হয় ব্যাগের মধ্যে স্যানিটাইজার জাতীয় কিছু রাখুন,কিছুক্ষন পর পর এটা দিয়ে হাত পরিষ্কার করে নিন।

৫- নিজের বাইক পরিষ্কার রাখতে হবেঃ

শুধু নিজে পরিষ্কার থাকলেই চলবে না,কারন করোনাভাইরাস এর জীবাণু আপনার বাইকেও কিন্তু লেগে থাকতে পারে। তাই বাইকের যে অংশগুলো বার বার হাত দিয়ে ধরতে হয় সেই জায়গাগুলো সব সময় জীনাণুমুক্ত রাখুন।

washing helmet liner

৬- হেলমেট নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবেঃ

বাইকের যত্ন আমরা কম বেশি সবাই নিয়ে থাকি, কিন্তু হেলমেটের যত্ন আমরা খুব কম মানুষেরাই নিয়ে থাকি। কিন্তু করোনাভাইরাস থেকে নিরাপদ থাকতে এখন আপনার হেলমেট ও জীনানুমুক্ত রাখতে হবে।

৭- লং ট্যুর দেয়া থেকে আপাতত বিরত থাকাঃ

এতোদিন বাসায় থাকার পর আমাদের সবার মাথায় একটা চিন্তা ঘুরপাক খাচ্ছে, কবে লকডাউন ছুটবে আর বাইক নিয়ে দূরে কোথায় ট্যুরে যাবো। কিন্তু এই কাজটা আপাতত না করা উত্তম। কারন এখনো আমাদের দেশ করোনাভাইরাস এর ঝুকিমুক্ত না। তাই নিজের এবং নিজের পরিবারের কথা চিন্তা করে কিছুটা দিন অপেক্ষা করুন।

street food

৮- বাইরের খোলা খাবার না খাওয়াঃ

অধিকাংশ বাইকারদের প্রিয় পানীয় হচ্ছে চা, কিন্তু আপাতত এই বাইরের চা খাওয়া থেকে আমাদের বিরত থাকা উচিৎ। শুধু চা নয় বাইরের খোলা জায়গার খাবার যেগুলোতে অনেক মানুষের হাতের স্পর্শ লাগে এমন খাবারগুলো আমাদের খাওয়া উচিৎ না।

৯- অযথা চোখ, মুখ, নাকে হাত দেয়া থেকে বিরত থাকাঃ

করোভাইরাস থেকে বাঁচতে এই দিকটা আমাদের সবচেয়ে বেশি খেয়াল রাখতে হবে। বার বার অকারণে চোখ, নাক, মুখে হাত দেয়া যাবে না। এতে আপনার ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেক বেড়ে যায়। চোখ মুখে হাত দেয়ার আগে হাত ভালো ভাবে সাবান পানি দিয়ে পরিষ্কার করে নিন।

drinking water

১০- প্রচুর পানি পান করুনঃ

মানবদেহের জন্য পানির কোন বিকল্প নেয়, ঠিক এই সময়টাতেও বেশি বেশি পানি পান করা আমাদের জন্য খুব বেশি জরুরী। অল্প অল্প করে কিছুক্ষণ পর পর পানি পান করুন। যদি সম্ভব হয় তাহলে হালকা গরম পানি পান করার চেষ্টা করুন। ঠাণ্ডা জাতীয় খাবারগুলো আপাতত পরিহার করুন। এই সময়টাতে নিজের গলা যেনো কখনো শুকনো না থাকে সেদিকে বিশেষভাবে খেয়াল রাখুন।

১১- সব সময় নিজে পরিষ্কার থাকুনঃ

আমরা সবাই জানি আমাদের দেশের রাস্তার কি অবস্থা, রাস্তায় ধূলাবালুর কোন কমতি নেই আমাদের দেশে। বাইরে থেকে বাসায় এসে চেষ্টা করুন সাবান দিয়ে ভালোভাবে গোসল করে নিতে। পরিষ্কার না হয়ে বাসার জিনিসপত্র টাচ করা থেকে বিরত থাকুন।

পরিষ্কার

১২- নিজের সুস্থতা নিশ্চিত করুনঃ

বাইক নিয়ে বাইরের থেকে আসার পর যদি আপনার কোন কারনে অসুস্থ মনে হয়,তাহলে পরদিন সকালে বাইরে যাওয়ার আগে একটু সাবধান হউন। শরীরে করোনাভাইরাস এর সংক্রমণ দেখা দিলে জরুরী ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

আমাদের মনে রাখতে হবে সাধারণ ছুটি আপাতত শেষ, কিন্তু করোনাভাইরাস এখনো আমাদের দেশ থেকে শেষ হয় নি। তাই অতীতের মতো অনেক কাজ এখন আর করা যাবে না। নিজে সাবধান থাকুন আর ভালো রাখুন নিজের পরিবারকে।

About Ashik Mahmud

ashik.bikebd@gmail.com'

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*